ব্রেকিং নিউজঃ

ছাতকে নাগরিক ফোরামের উদ্যোগে ৫০ জন ছেলে শিশুকে ফ্রি খৎনা

ছাতকে নাগরিক ফোরামের উদ্যোগে ৫০ জন ছেলে শিশুকে ফ্রি খৎনা
Content TOP

হাবিবুর রহমান নাসির ছাতক প্রতিনিধিঃ ছাতকের ইসলামপুর সম্মিলিত নাগরিক ফোরামের উদ্যোগে মেডিকেল টিমের মাধ্যমে এলাকার ৫০ জন ছেলে শিশুকে ফ্রি খৎনা করা হয়েছে। শুক্রবার দিনব্যাপী ইসলামপুর ইউনিয়ন পরিষদে আনুষ্ঠানিকভাবে এসব শিশুদের ফ্রি খৎনা করা হয়। ফোরামের পক্ষশ থেকে খৎনায় অংশ নেয়া প্রত্যেক শিশুকে ১টি লুঙ্গি, ১টি গামছা, ১টি টিস্যু, ১টি সাবান ও ১প্যাকেট করে ম্যাগো জুস বিনামুল্যে প্রদান করা হয়। সেচ্ছায় ফ্রি খৎনা কার্যক্রমের আনুষ্ঠানিক উদ্বোধন করেন ছাতক পাথর ব্যবসায়ী সমিতির সাধারন সম্পাদক হাজী আবুল হাসান। এসময় ছাতক পাথর ব্যবসায়ী হাজী হেলাল উদ্দিন, হাজী আফাজ উদ্দিন, হাজী ইছহাক আলী, হাজী নাজিম উদ্দিন, সামছুজ্জামান রাজা, হাজী ফারুক মিয়া, নোয়াগাঁও মাদ্রাসার মুহতামিম মাওলানা আব্দুল হান্নান, হাজী শুকুর উদ্দিন, হাজী লিলু মিয়া, মাওলানা আকিক হোসাইন, জহির আহমদ, মুরাদ আহমদ, হাজী দুদু মিয়া, বাবুল মিয়া মেম্বার, প্রধান শিক্ষক আব্দুল গনি, শিক্ষক লুৎপুর রহমান, সাব্বির আহমদ, ফোরামের সাজ্জাদুর রহমান মেম্বার, নাজির হোসেন, আব্দুল বারী চপল, হাজী বদরুল আলম, মোহাম্মদ আলী, দুলাল মিয়া, মোশারফ হোসেন, মুক্তার আলী, জাবেদ আহমদ, জাবেদ জামান, জাহিদ হাসান রুহেল, হোসাইন আহমদ, ফাহিম শাহরিয়ার রেজুয়ান, হিমরান হোসেন, নাদেল আহমদ, মোস্তাফিজুর রহমান পল্লব, আবু বক্কর, কামরান, ফখরুল ইসলাম বাদশাসহ এলাকার গন্যমান্য ব্যক্তিবর্গ। অনুষ্ঠানের শুরুতে দোয়া পরিচালনা করেন মাওলানা ফখরুল ইসলাম। গোবিন্দগঞ্জে দোকানকোটা দখলের চেষ্টা জেলা প্রশাসক বরাবরে অভিযোগ হাবিবুর রহমান নাসির ছাতক প্রতিনিধিঃ ছাতকের গোবিন্দগঞ্জ নতুনবাজারে জোরপূর্বক ভুমি দখল ও চলাচলে প্রতিবন্ধকতা সৃষ্টির অভিযোগে সুনামগঞ্জের জেলা প্রশাসক বরাবরে একটি লিখিত অভিযোগ দিয়েছেন গোবিন্দগঞ্জ-সৈদেরগাঁও ইউনিয়নের গোবিন্দনগর গ্রামের হাজী আরব আলীর পুত্র আনসার আলী। আবেদনের প্রেক্ষিতে গত ৮ আগষ্ট সুনামগঞ্জের রেভিনিউ ডেপুটি কালেক্টর স্বাক্ষরিত ১৯৮৫(৪) স্মারকে ছাতক উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তাকে বিষয়টি তদন্ত পূর্বক ব্যবস্থা গ্রহনের নির্দেশক্রমে অনুরোধ করা হয়েছে। অভিযোগ সুত্রে জানা যায়, গোবিন্দগঞ্জ নতুনবাজারে নিজ ভুমির পাশাপাশি সরকারী ভুমি দখল করে মার্কেট নির্মাণ করে ব্যবসা করে আসছেন গোবিন্দনগর গ্রামের দিলোয়ার হোসেন ও মকবুল হোসেন। মকবুল হোসেনের পিতা আবুল হোসেনের কাছ থেকে একই দাগের ১ শতক ভুমি ১৯৭৪ সনের ১৩০১৮ নং দলিলে ক্রয় করেন আনসার আলীর পিতা আরব আলী। এ ভুমিতে টিনসেডের দোকান ঘর নির্মাণ করে ব্যবসা পরিচালনা করছেন আনসার আলী। সমপ্রতি তার খরিদা ও দখলিয় ব্যবসা প্রতিষ্ঠানের সামনে লোহার সিঁড়ি বসিয়ে চলাচলের প্রতিবন্ধকতাসহ দোকান ভিট দখলের পায়তারা করছে প্রতিপক্ষরা। এ ব্যাপারে একাধিক সালিশ-বৈঠক অনুষ্ঠিত হলেও প্রতিপক্ষের অমান্যতার কারনে বিষয়টি নিস্পত্তি হচ্ছে না।

Content TOP

Related posts

Leave a Reply

body banner camera