brandbazaar globaire air conditioner

কোহলি নন, সেরা স্মিথ: গাম্ভীর

কোহলি নন, সেরা স্মিথ: গাম্ভীর
Content TOP

বর্তমান বিশ্বের সেরা ব্যাটসম্যান কে? উত্তরে সবাই ঘুরেফিরে তিন-চারজনের নামই বলবেন। কেউ বলবে কোহলি, কেউবা আবার কেন উইলিয়ামসনকে তুলে দিবেন সেরার মুকুট, আবার কেউ স্মিথকে উঁচু করে তুলে ধরবেন। এই তিন জনের বাইরে জো রুট, ডেভিড ওয়ার্নার আর রোহিত শর্মার নাম আশেপাশে ঘুরবে। অনেকের অনেক রকম মতের মধ্যেই নিজের মত তুলে ধরলেন ভারতের বিশ্বকাপ জয়ী দলের অন্যতম সদস্য ও সাবেক ওপেনার গৌতম গাম্ভীর।

স্বভাবতই নিজের দেশের সতীর্থ কোহলিকে সেরা বলার কথা। কিন্তু না! কোহলিকে সেরা বললেও তার উপরে স্মিথকে রেখেছেন গাম্ভীর। বিরাট কোহলি-কেন উইলিয়ামসন নন, সময়ের সেরা টেস্ট ব্যাটসম্যান স্টিভেন স্মিথ। এমনটিই মনে করেন ভারতের সাবেক ওপেনার গৌতম গাম্ভীর। এক সাক্ষাতকারে তিনি বলেছেন, আমরা সবসময় বর্তমানের সেরা চার ব্যাটসম্যান নিয়ে কথা বলি। কিন্তু ব্যক্তিগতভাবে আমি মনে করি, স্মিথ সময়ের সেরা ব্যাটসম্যান। বাকিদের থেকে অনেকখানি এগিয়ে সে।

দক্ষিণ আফ্রিকায় শিরিস কাগজে বল টেম্পারিং কাণ্ডে এক বছরের নিষেধাজ্ঞা কাটিয়ে গেল মার্চে ওয়ানডে ক্রিকেটে ফেরেন স্মিথ। এরপর অস্ট্রেলিয়ার হয়ে বিশ্বকাপ খেলেন তিনি। আর টেস্টে ফিরেছেন অ্যাশেজ দিয়ে। ঐতিহ্যবাহী চলমান সিরিজে মোট পাঁচ ইনিংসে ব্যাটিং করার সুযোগ পেয়েছেন তিনি। তাতেই করেছেন বাজিমাত।

টেস্ট ক্রিকেটে ফিরেই তিনটি সেঞ্চুরি হাঁকিয়েছেন স্মিথ, রয়েছে একটি ডাবল সেঞ্চুরির ইনিংস। একটি ফিফটিও মেরেছেন সাবেক অজি কাপ্তান। পথিমধ্যে গড়েছেন অসংখ্য রেকর্ড। ইংল্যান্ডের কন্ডিশনে এমন চোখধাঁধানো পারফরম্যান্সেই গম্ভীরের চোখে সেরা বনে গেছেন স্মিথ।

ভারতের সাবেক ওপেনার ও বর্তমান সাংসদ গাম্ভীর বলেন, আমরা সবসময় হালের সেরা চার ব্যাটসম্যান (কোহলি, উইলিয়ামসন, জো রুট, স্মিথ) নিয়ে কথা বলি। তবে ব্যক্তিগতভাবে আমি মনে করি, স্মিথ সময়ের সেরা টেস্ট ব্যাটসম্যান। বাকিদের থেকে অনেকখানি এগিয়ে সে। তার গড় ৬৫। ভুলে গেলে চলবে না, সে কিন্তু নিজ ক্যারিয়ারের প্রথম ১৫-১৬টি টেস্ট লেগস্পিনার হিসেবে খেলেছে, ব্যাটিং করেছে ৮-৯ নম্বরে।

তিনি বলেন, স্মিথ এখন পর্যন্ত ৬৭টি টেস্ট খেলেছে। সেখান থেকে ১৫টি বাদ দিলে প্রায় অর্ধশতক টেস্টে ২৬টি সেঞ্চুরি করেছে সে, গড় ৬৫। কেপটাউন টেস্টে বল টেম্পারিং করায় ক্রিকেটের দীর্ঘ পরিসরে এক বছর খেলেনি ও। নির্বাসন কাটিয়ে মাঠে ফিরেছে সে। খেলছে ইংলিশ কন্ডিশনে। সেখানে রান করা কঠিন। এসব কারণেই আমার দৃষ্টিতে সবার থেকে এগিয়ে ও।

বিশ্বকাপের পরে চলতি অ্যাশেজের প্রথম টেস্টে জোড়া সেঞ্চুরি হাঁকানোর পর লর্ডসে ৯২ রানে আউট হন স্মিথ। জোফরা আর্চারের বাউন্সারে মাথায় আঘাত পেয়ে দ্বিতীয় ইনিংসে ব্যাটিং করেননি তিনি। খেলতে পারেননি সিরিজের তৃতীয় টেস্টে।

ম্যানচেস্টার টেস্টে ফিরে যেখানে থেমেছিলেন, সেখান থেকেই শুরু করেছেন অজি ব্যাটিং মায়েস্ত্রো। স্বাগতিক বোলারদের বিন্দু পরিমাণ পাত্তা না দিয়ে প্রথম ইনিংসে তুলে নেন ক্যারিয়ারের ২৬তম টেস্ট সেঞ্চুরি। মাইলফলকে পৌঁছেও তৃপ্তি মেটেনি তার, ক্যারিয়ারে তৃতীয় দ্বিশতক হাঁকিয়ে ২১১ রানে ডাগআউটে ফেরেন তিনি। দ্বিতীয় ইনিংসে খেলেন ৮২ রানের ঝড়ো ইনিংস। স্মিথ নৈপূণ্যে এ টেস্টে জয়ও তুলে নিয়েছে অস্ট্রেলিয়া।

Content TOP

Related posts

body banner camera