ব্রেকিং নিউজঃ

হারেম কাহিনী

হারেম কাহিনী
bodybanner 00

হারেম শব্দটি শুনলে বা বলতে গিয়ে বেশিরভাগ মানুষের চোখ এক ধরনের অস্বাভাবিক লোভে চকচক করে ওঠে। অথচ আরব বিশ্বে এ শব্দটি নিরাপত্তা ও সম্ভ্রমের প্রতীক। হারাম বা নিষিদ্ধ শব্দ থেকেই এর উৎপত্তি। অন্দরমহল বা ভেতরবাড়ি বোঝাতেই এর প্রচলন। পরপুরুষের জন্য বেআইনি এলাকা বলেই এর নাম হারেম। কিন্তু পাশ্চাত্যের প্রচারণা এমন যে, হারেম মানেই ভোগের জন্য ধরে আনা শত শত সুন্দরী তরুণীর আস্তানা, যারা সুলতান বা আমির-ওমরাহের কামনা নিবারণে রত।
হারেম কাহিনী
আসল বিষয়টি মোটেই সে রকম নয়।
আরবদের যেসব বিষয় পাশ্চাত্যে ও দূরপ্রাচ্যে সাংঘাতিক বিকৃতভাবে পরিবেশিত, হারেম তার অন্যতম। অথচ এসব প্রচারকারীর সামনে কেউ যদি চ্যালেঞ্জের সুরে বলে যে, মহামান্য আলেক্সান্ডারের সাথে প্রায় পাঁচ হাজার নারী-সঙ্গিনী ছিল, কিংবা তিনি বিয়ে করেছিলেন তিন-তিনবার, তাহলে এরা লেজ গুটিয়ে পালায়।

 

হারেম মানে ফ্যামিলি-কোয়ার্টার। সুলতানের মা, বোন, নিকটত্মীয়া এবং সম্ভাব্য ভবিষ্যৎ স্ত্রীরা এখানে প্রতিপালিত হতো কঠোর শৃঙ্খলা ও প্রশিক্ষণে। ওয়ালিদে সুলতান বা সুলতানের মা হতেন হারেমের প্রথাগত অধিকর্ত্রী। হারেমের নিরাপত্তার দায়িত্বে থাকত কালো খোজারা।

 

সে যুগে মা-বাবারাই সুন্দরী তরুণী কন্যাকে হারেমে পাঠাতে পারলে ধন্য হতেন। কারণ, হারেম ছিল আভিজাত্য এবং সুলতানের সাথে আত্মীয়তার প্রতীক। এ ছাড়া মেয়েদেরকে কিনেও উপহার পাঠাতেন উচ্চ রাজন্য ও পারিষদরা। কখনো পার্শ্ববর্তী দেশ থেকেও তরুণীদের উপঢৌকন হিসেবে পেতেন সুলতান।

 

হারেমের মেয়েদেরকে প্রধানত চার ভাগে ভাগ করা হতো ১. ওদালিক বা সাধারণ পরিচারিকা; ২. গেদিল্কি বা খাস পরিচারিকা (এদের সংখ্যা সব সময় ১২ জনে সীমিত থাকত); ৩. ইকবাল বা গোজ্দে যারা ছিল সুলতানের প্রিয়ভাজন, কখনো কখনো অংকশায়িনী; ৪. কাদিন বা হাসেকি-সুলতান, যাদের ঔরসে তার সন্তান জন্মাত।

 

শেষের দলের প্রায় সবাই আনুষ্ঠানিক স্ত্রী এবং এদের মধ্যে যিনি প্রথম পুত্রসন্তান প্রসব করতেন তিনিই পরবর্তী ওয়ালিদে সুলতান বা রাজমাতা হতেন।

 

হারেমের নারীদের বাদ্যযন্ত্র, সঙ্গীত, নৃত্যকলা, লেখালেখি, সুচিকর্ম এবং অঙ্কনশিল্পে পারদর্শী হতে হতো। তারা এখানে বন্দী জীবন যাপন করতেন না। তাদের বাইরে বেরোবার জন্য পর্দাঢাকা গাড়ি থাকতো। বছরে দু’বার তারা পিতা-মাতার বাড়িতে এবং মাসে একবার রাজকীয় অনুষ্ঠানে যেতেন রাজপ্রাসাদের আচার-আচরণ শিখতে। সুলতান নিজে এসব পার্টি থেকে পরবর্তী স্ত্রী বাছাই করতেন তাদের জ্ঞান, দক্ষতা, রুচি ও পরিবেশনা বিচার করে।

Related posts

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

bodybanner 00