ব্রেকিং নিউজঃ

রাউজানে প্রবল বর্ষণ ও পাহাড়ি ঢলে ব্যাপক ক্ষয়ক্ষতি

রাউজানে প্রবল বর্ষণ ও পাহাড়ি ঢলে ব্যাপক ক্ষয়ক্ষতি
bodybanner 00
অামির হামজা রাউজান (চট্টগ্রাম) প্রতিনিধিঃ

গত কয়েকদিনে গরমে হাঁপিয়ে উঠেছিল মানুষ। রবিবার থেকে শুরু করে রাউজানে বিভিন্ন স্থানে বৃষ্টি কারণে দেখা মিলছে বন্যা । বৃষ্টি শুরু হওয়ায় আগের মতো আর গরম নেই। তাই মানুষ কিছুটা হলেও স্বস্তি পাচ্ছেন।

আবার ভোগান্তির শিকারও হচ্ছেন হাজার হাজার অনেকে মানুষ। বিশেষ করে খেটে খাওয়া কর্মজীবী মানুষ। অফিসে, শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে ও ব্যবসা প্রতিষ্ঠানে যেতে হচ্ছে বৃষ্টি মাথায় নিয়ে। কাজ করতে হচ্ছে বৃষ্টি উপেক্ষা করে। এমনকি ঈদকে সামনে রেখে রাউজানে বিভিন্ন মার্কেটে নেই তেমন বেচাকেনা, কারণ বৃষ্টিতে ভিজে মানুষের মার্কটে আসার জন্য তেমন অগ্রহ প্রকাশ পাচ্ছেনা। তা ছাড়া রাউজানে বেশ কিছু এলাকার পানি জমে যাওয়ায় সেসব এলাকায় মানুষেরও দুর্ভোগের শেষ নেই।

এদিকে বৈরি আবহাওয়ার কারণে রাউজান উপজেলায় আজ সকাল থেকে হাটু পানি মধ্য দিয়ে মানুষের চলাচল করতে হয়েছিল, এমন্ত আবস্থায় যান চলাচল বন্ধ রয়েছে। ফলে আটকে থাকা গাড়ির যাত্রীরা সময় মতো গন্তব্যে পৌঁছাতে পারছে না।

জেলা প্রশাসন শামীম হোসেন রেজা তথ্য সূত্রে জানা গেছে, উপজেলার বেশ কিছু ইউনিয়ন ভয়াবহ বন্যায় প্লাবিত হয়ে পড়ে। রাউজান পৌরসভা, হলদিয়া, ডাবুয়া, চিকদায়, বিনাজুরী,  কদলপুরসহ বিভিন্ন স্থানে আজ মধ্যরাতে অতি বৃষ্টি কারণে ভয়াবহ বন্যা হয়েছে। এবং এতে ২০ হাজারে অধিক পরিবার ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে বলে জানান তিনি।

খবর পাওয়া গেছে, সবচেয়ে ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে হলদিয়া, ডাবুয়া,  গ্রামের মাটির ঘড় সুম্পন বন্যায় উজান থেকে নেমে আসা পাহাড়ী ঢলের পানিতে তলেগেছে, এতে বন্যা পরিস্থিতি সৃষ্টি হয়েছে। এই ভারী বর্ষণে শুরু করে ঘরবাড়িসহ ফসলের জমির ব্যাপক ক্ষতি হয়েছে। ধারণা করা হচ্ছে অতি পানি হওয়ার কারণ সাঁতার কাল, হালদা নদি, ডাবুয়া কালের পানির জন্য এসব পরিবার ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে।

রবি কোম্পানির মার্কেটিং কর্মকর্তা নয়ন জানান, বৃষ্টিতে রাউজানের উপজেলা হাটুপানিতে সড়কের বিভিন্ন জায়গা পানি জমে গেছে । বৃষ্টিতে কাজ করতে গিয়ে চরম ভোগান্তির শিকার হতে হয়েছে। পরে রবি অফিস ছুটি ঘোষাণা করেন। রাউজানে বিভিন্ন দোকানে বন্যায় পানি ঢুকে মালামাল নষ্ট হয়েছে। আরো খবর পাওয়া যায় রাউজানে ব্রিজ, কালভাট, বিভিন্ন সড়ক ক্ষতিগ্রস্ত হয়ে প্রায়, ডাবুয়া ব্রিজে ভেঙে মানুষের চরম ভোগান্তির শিকার হতে হচ্ছে। এতে যোগাযোগব্যবস্থা কিছু বন্ধ হয়েছে, এদিকে প্রায় চারশতাধিক পুকুরের মাছ বন্যার পানিতে ভেসে গেছে, শাখ-সবজি সহ জমি বিভিন্ন ফসল ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে। জেলা প্রশাসন শামীম হোসেন রেজা জানান আমরা প্রয়োজনীয় প্রস্তুতি নিয়েছি।

Related posts

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

bodybanner 00