ভৈরবে গৃহহীন ৩৪৮ দরিদ্র অসহায় পরিবারকে অাশ্রায়ন প্রকল্পের অধীনে ঘর বিতরণ    

ভৈরবে গৃহহীন ৩৪৮ দরিদ্র অসহায় পরিবারকে অাশ্রায়ন প্রকল্পের অধীনে ঘর বিতরণ      
bodybanner 00
 মিলাদ হোসেন অপু, ভৈরব প্রতিনিধি:
ভৈরবে আশ্রায়ন প্রকল্পের অধীনে ৩ শ ৪৮ জন দরিদ্র ও  অসহায়রা  ঘর পেল। জমি আছে ঘর নেই এমন গরীব অসহায় মানুষকে সরকারীভাবে ঘর নির্মান করে দেয়া হবে। এই উপলক্ষে আজ বুধবার সকালে ভৈরব উপজেলার শিমুলকান্দি ইউনিয়নের চানপুর সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়ে এক অনুষ্ঠানের আয়োজন করা হয়। শিমুলকান্দি ইউপি আয়োজিত এসভায় সভাপতিত্ব করেন ওই ইউনিয়নের চেয়ারম্যান জুবায়ের আলম দানিছ। অনুষ্ঠানে উদ্বোধক ছিলেন উপজেলা নির্বাহী অফিসার মোহাম্মদ কাজী ফয়সাল। প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন উপজেলা আওয়ামী লীগ সভাপতি আলহাজ্জ মো. সায়দুল্লাহ মিয়া।  বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন উপজেলা সহকারী কমিশনার ( ভূমি)  মো. জাকির হোসেন, ইউনিয়ন আওয়ামীলীগ সভাপতি আবদুল আজিজ,  সাধারণ সম্পাদক কামাল উদ্দিন, ডা. দুলাল প্রমূখ। জানা গেছে, উপজেলার শিমুলকান্দি ইউনিয়নের ৯ টি ওয়ার্ডে বসবাসরত গরীব ও অসহায় যাদের জমি আছে কিন্ত ঘর নেই এমন ৩৪৮ টি  পরিবারকে  আশ্রায়ন প্রকল্প – ২ এর অধীনে সরকারীভাবে একটি করে ঘর নির্মান করে দেয়া হবে। স্হানীয় সংসদ সদস্য নাজমুল হাসান পাপনের সুপারিশক্রমে প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয় থেকে এই প্রকল্পটি অনুমোদন দেয়ার পর আজ বুধবার অনুষ্ঠান শেষে  ঘর নির্মাণ কাজ শুরু করা হয়। ষোল ফিট বাই ষোল ফিট ঘরে একটি টয়লেট থাকবে বলে জানান প্রকল্পের সভাপতি উপজেলা নির্বাহী অফিসার। আগামী ৬০ দিনের মধ্য প্রকল্পটি বাস্তবায়ন করার কাজ শেষ হবে। প্রকল্পটি বাস্তবায়ন করতে ৫ সদস্যের  একটি কমিটি রয়েছে। কমিটির সভাপতিসহ সকল সদস্যগনের  সরাসরি তদারকিতে ৩৪৮ টি ঘর নির্মান করে দেয়া হবে। এতে ভৈরবের শিমুলকান্দি ইউপি এলাকায়  যাদের জমি ছিল ঘর ছিলনা  এমন ৩শ ৪৮ টি পরিবার ঘরে আশ্রয় পেল। এমনই একটি পরিবারের নারী যার নাম চম্পা বেগম। তার স্বামীর নাম মিন্টু মিয়া এবং বাড়ী ওই ইউনিয়নের চাঁনপুর গ্রামে। প্রকল্পের আওতায় চম্পা বেগম একটি ঘর পেয়েছে। আজ বুধবার তার ঘরটি নির্মানের কাজ উদ্বোধন করলেন প্রকল্পের সভাপতি উপজেলা নির্বাহী অফিসার মোহাম্মদ কাজী ফয়সাল। দরিদ্র ও অসহায় এই নারী ঘর পেয়ে আনন্দে আত্নহারা হলেন। চম্পা বেগম জানায়, বহুদিন যাবত আমি পরিবার নিয়ে একটি ভাঙ্গা ঘরে থাকতাম। সরকার আমাকে ঘরটি দেয়ায় পরিবার নিয়ে ভালভাবে ও শান্তিতে বসবাস করতে পারব। ওই নারী সংসদ সদস্য নাজমুল হাসান পাপনকে ধন্যবাদ জানান।

Related posts

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

bodybanner 00