ব্রেকিং নিউজঃ

বিদ্যুতের দাম বৃদ্ধি: মড়ার উপর খাঁড়ার ঘা

বিদ্যুতের দাম বৃদ্ধি: মড়ার উপর খাঁড়ার ঘা
bodybanner 00

brand bazaar

 রাশিম মোল্লা

দ্রব্য মূল্যের অসহনীয় ঊর্ধ্বগতি। চাল, পিয়াজ ও কাঁচামরিচের ঝাঁলে যখন সাধারণ মানুষ অতিষ্ঠ। শীতের মৌসুমেও যখন সবজির বাজারে আগুন। গরীব মানুষ ডাল-ভাতের অর্থ রোজগারে যখন দিশেহারা। বিদ্যুৎ বিভাগ তখন বিদ্যুতের এ মূল্য বৃদ্ধি করে জনজীবনকে অতিষ্ঠ করে তুলছে। যদিও গত এপ্রিল মাস থেকে বাড়ানো হয়েছে গ্যাসের মূল্য।

বিদ্যুতের দাম বৃদ্ধি: মড়ার উপর খাঁড়ার ঘা

ওই রেশ কাটতে না কাটতেই চলতি মাসে আরও এক দফা বিদ্যুতের দাম বাড়ানোর ঘোষণা এলো। অথচ কারিগরি দক্ষতা, বিদ্যুৎকেন্দ্রলোতে উৎপাদনের পরিমাণ বৃদ্ধি এবং ডিজেলের বদলে ফার্নেস অয়েলের ওপর বেশি জোর দেওয়া হলে আর বিদ্যুতের দাম বাড়ানো লাগত না। বরং ২৮ পয়সা কমানো সম্ভব হত। এমনই মত দিয়েছে ভোক্তা অধিকার সংগঠন-কনজ্যুমারস অ্যাসোশিয়েশন অব বাংলাদেশ(ক্যাব)। গত কয়েক বছর ধরে বিশ্ব বাজারে তেলের দাম কম থাকলেও দেশের বাজার সংশ্লিষ্ট খাতে এর কোনো প্রভাব পড়েনি। তাহলে বিদ্যুতের দাম বাড়ানোর প্রয়োজনটা হল কেন? কতটা যৌক্তিক বিদ্যুতের এ মূল্য বৃদ্ধি। বিশেজ্ঞরা কি বলছেন। তাদের মতে প্রথমত, বর্তমানে পাঁচটি বিতরণ কোম্পানির মধ্যে শুধুমাত্র পল্লী বিদ্যুৎ ছাড়া বাকী সবগুলোই বর্তমান মূল্যহার থেকেই মুনাফা করছে। দ্বিতীয়ত, ক্যাবের বিশেষজ্ঞদের মতে, ১৫ দফা সুপারিশগুলো বাস্তবায়ন করা হলে বিদ্যুতের উৎপাদন খরচ কমে আসবে। প্রধানমন্ত্রী যখন সব কিছু জনগণের ক্রয়ক্ষমতার মধ্যে রাখতে মরিয়া। তখন বিদ্যুতের এ মূল্য বৃদ্ধি কোনভাবেই যৌক্তিক মনে হয় না। সব সেক্টরেই কি সরকারকে লাভ করতে হবে। মনে রাখা দরকার বিদ্যুতের মূল্যবৃদ্ধি শুধু একটি ক্ষেত্রেই সীমাবদ্ধ থাকে না। পুরো দ্রব্য মূল্যর ক্ষেত্রে এর প্রভাব পরে। এবার বিদ্যুতে প্রতি ইউনিটে গড়ে বেড়েছে ৩৫ পয়সা। বৃদ্ধির হার ৫ দশমিক ৩ শতাংশ। ফলে আবাসিকে মাসে ৭৫ ইউনিট পর্যন্ত বিদ্যুব্যবহারকারীদের খরচ বাড়বে ১৫ টাকা, ১৫০ ইউনিটে ৪৮ টাকা, ২৫০ ইউনিট পর্যন্ত ৯০ টাকা, ৪৫০ ইউনিট পর্যন্ত ১৯৬ টাকা এবং ১০০০ ইউনিট পর্যন্ত ব্যবহারকারীদের খরচ বাড়বে ৬০৪ টাকা। এ যেন গ্রাহকদের মড়ার উপরে খাঁড়ার ঘা। অথচ প্রধানমন্ত্রীর বিদ্যুৎ, জ্বালানি ও খনিজ সম্পদবিষয়ক উপদেষ্টা ড. তৌফিক-ই-ইলাহী চৌধুরী বিদ্যুতের এই মূল্যবৃদ্ধি মামুলি বিষয় বলে মন্তব্য করেছেন। অপরদিকে মন্ত্রী নসরুল হামিদ বিপু মূল্য বিদ্যুতের এ মূল্যবৃদ্ধি জনগণের ওপর কোনো প্রভাব পড়বেনা বলে দেশবাসীকে জানিয়েছেন। তবে বিদ্যুতের গ্রাহকরা বলছেন অতিরিক্ত এ মূল্য দিতে গিয়ে তাদের নানা সমস্যায় পড়তে হবে। ঢাকার একটি আবাসিক ভবনের মালিক শফিউল আলম বলেন, এমনিতেই কিছুদিন আগে বাড়লো, এখন আবার বিদ্যুতের দাম বাড়ানোতে অতিরিক্ত বিল দেয়াটা আমাদের জন্য খুব বেশী কষ্টকর হয়ে যাবে। ভাড়াটিয়াদের উপরও চাপ বাড়বে। এদিকে গ্রামাঞ্চলে বসবাসকারী মানুষেরাও বলছেন বিদ্যুতর এ মূল্যবৃদ্ধির কারণে তারা চরম ভোগান্তিতে পড়ছেন। বিশেষ করে কৃষিকাজে তাদের উৎপাদন খরচ বেড়েই চলছে। ময়মনসিংহের ফুলবাড়িয়ার কৃষক সরওয়ার আলম বলেন, গত মৌসুমে বন্যা-খরায় কৃষকদের ফলন খারাপ ছিলো। এবার বিদ্যুতের দাম না বাড়ালে কৃষকেরা খেয়ে-পরে বাচতে পারতো। উৎপাদন খরচ ও সিস্টেম লস কমিয়ে এবং চুরি-দুর্নীতি বন্ধ করে বিদ্যুতের দাম কমানোর দিকেই দৃষ্টি দেওয়া উচিত। ক্যাবের ১৫ দফা সুপারিশে বেশ কিছু উপায়ও বাতলে দেওয়া হয়েছে। কারিগরিভাবে অধিকতর দক্ষ বিদ্যুৎকেন্দ্রলোতে উৎপাদনের পরিমাণ বাড়ানো এবং ডিজেলের বদলে ফার্নেস অয়েলভিত্তিক কেন্দ্রগুলোর ওপর বেশি জোর দেওয়া দরকার। বেসরকারি গবেষণা সংস্থা পলিসি রিসার্চ ইনস্টিটিউটের (পিআরআই) নির্বাহী পরিচালক আহসান এইচ মনসুর বলেন, ‘আমাদের আগে বিদ্যুতের দাম অন্য দেশের চেয়ে কম ছিল। এ জন্য আমাদের শিল্প খাত তুলনামূলক সুবিধা পেত। আমাদের এফিসিয়েন্সি বাড়াতে হবে। অর্থাৎ উচ্চ দামের বিদ্যুৎ থেকে স্বল্পমূল্যের বিদ্যুতের সক্ষমতা বাড়াতে হবে। এ ক্ষেত্রে আমি পাওয়ার বোর্ডের প্রচেষ্টার অভাব আছে বলে মনে করি। তারা হাই কস্ট বিদ্যুৎ উৎপাদন করছে। কুইক রেন্টালে অনুমতি দেওয়া হচ্ছে। এটা বিদ্যুতের দাম আরও বাড়িয়ে দেবে।’ আহসান এইচ মনসুর আরও বলেন, ‘আমাদের ভারত থেকে বিদ্যুৎ আমদানি বাড়ানো প্রয়োজন। এটা আমাদের জন্য সাশ্রয়ী হবে। যেটাই করা হোক দ্রুত অন্য পদক্ষেপ নিতে হবে। কারণ, উৎপাদনে খরচ বাড়ায় তা ভোক্তার ওপরই পড়ছে। এটা যৌক্তিক বা টেকসই বলে মনে করি না। এটা আমাদের রপ্তানি খাতে প্রতিযোগিতা কমিয়ে দেবে।’ মনে রাখা প্রয়োজন, বাংলাদেশ এনার্জি রেগুলেটরি কমিশনের (বিএআরসি) কাজ শুধু বিদ্যুতের দাম বাড়ানো নয়। দাম বাড়ানোর প্রস্তাবের যৌক্তিকতা আছে কি না, তা যাচাই করতে হবে এবং অযৌক্তিক দাবি অবশ্যই প্রত্যাখ্যান করতে হবে।

লেখক: সাংবাদিক, দৈনিক মানবজমিন

E- Mail: mdrashim@gmail.com

Related posts

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

bodybanner 00