বিক্ষোভ ফাঁকি দিয়ে মাওলানা সাদ কাকরাইলে

বিক্ষোভ ফাঁকি দিয়ে মাওলানা সাদ কাকরাইলে
bodybanner 00

 

পাক-ভারত-বাংলাদেশের শীর্ষ আলেমদের মতামত ও সিদ্ধান্তকে উপেক্ষা করে দিল্লির নিজামুদ্দিনের তাবলিগি মারকাজের আমির সাদ কান্ধলভীর আগমন ঠেকাতে চলা আলেম-উলামা ও তাদের অনুসারী তাবলিগপন্থীদের নজিরবিহীন বিক্ষোভ ফাঁকি দিয়ে পুলিশ প্রহরায় কাকরাইলে চলে গেছেন সাদ কান্ধলভী ও তার সঙ্গীরা। খবর নিশ্চিত করেছেন বিমানবন্দর কেন্দ্রীয় মসজিদের খতিব মাওলানা আখরুজ্জামান। দুপুর একটার দিকে তাকে বহনকারী বিমান হযরত শাহ জালাল আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরে অবতরণ করলে পরামর্শক্রমে তাকে কাকরাইলে নেয়ার সিদ্ধান্ত হয়।
বিক্ষোভ ফাঁকি দিয়ে মাওলানা সাদ কাকরাইলে

বিকাল ৪টার দিকে মাওলানা সাদ কাকরাইল তাবলিগের মারকাজ মসজিদে পৌঁছেন বলে তাবলিগের শুরার একজন সদস্য নিশ্চিত করেছেন।

আপত্তিকর বক্তব্য প্রত্যাহার এবং দেওবন্দের মতামতকে গুরুত্ব দেয়াসহ একাধিক বিষয়ে সেখানে আলোচনা করা হবে।

ইজতেমার মাঠে তিনি বয়ান করবেন কিনা সে ব্যাপারেও সেখানে সিদ্ধান্ত হবে বলে জানা গেছে।

কাকরাইলের নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক সূত্রে জানা গেছে, সাদ কান্ধলভীকে প্রয়োজনে হেলিকপ্টারে করে হলেও টঙ্গী ময়দানে নিতে চান তার অনুসারীবৃন্দ।

 

এদিকে বিমানবন্দর গোল চত্বর সংলগ্ন সড়কে সকাল দশটা থেকে শুরু হওয়া বিক্ষোভ এখনো চলছে। ঢাকার ভেতর ও টঙ্গী, আশুলিয়াসহ বিভিন্ন এলাকা থেকে আলেম-উলামারা এখনো এসে ওই বিক্ষোভে যোগ দিচ্ছেন। ইতোমধ্যে বিক্ষোভে যোগদান করেছেন ঢাকা ও টঙ্গীর উল্লেখযোগ্য আলেমরা।

আশপাশের কওমি মাদরাসা ছাত্র-শিক্ষকরা এসে যোগ দিচ্ছেন।

বিক্ষোভে সংহতি প্রকাশ করে বক্তব্য প্রদান করেছেন আশপাশের মসজিদের ইমাম ও মাদরাসার মুহতামিমরা।

উপস্থিত হয়েছেন কওমি মাদরাসা শিক্ষাবোর্ড বেফাকের মহাসচিব আল্লামা আব্দুল কুদ্দুস, বেফাকের সিনিয়র সহ-সভাপতি আল্লামা আশরাফ আলী, বেফাকের যুগ্ম মহাসচিব মাওলানা মাহফুজুল হক, মারকাজুশ শাইখ ইসলামিয়া রিসার্চ সেন্টারের পরিচালক মুফতি মিজানুর রহমান সাঈদ, মুফতী কেফায়াতুল্লাহ আজহারী,এয়ারপোর্ট মাদরাসার মুহতামিম মওলানা আনিসুর রহমান, টঙ্গীর বৃহত্তম কওমি মাদরাসা দারুল উলুমের মুহতামিম মুফতী মাসউদুল করীমসহ প্রবীণ ওলামায়ে কেরাম।

 

বিমানবন্দরে সাংবাদিকদের এক প্রশ্নের উত্তরে ঢাকার মুহাম্মদপুর জামেয়া রহমানিয়ার প্রিন্সিপাল মাওলানা মাহফুজুল হক বলেন, বাংলাদেশের সব আলেমের মতামতকে উপেক্ষা করে তিনি বাংলাদেশে এসেছেন। অথচ, সরকারের সাথে কথা হয়েছিলো তারা দুই গ্রুপ একসাথে আসতে পারবে, নতুবা নয়।

মাওলানা মাহফুজুল হক আরো বলেন, আমাদের একটাই দাবী তাকে এয়ারপোর্ট থেকে ফিরিয়ে দেয়া হোক।

বিমানবন্দরের পাশাপাশি যাত্রাবাড়ীতে বেফাকের সামনে জড়ো হয়েছেন দেশের শীর্ষস্থানীয় আলেম-ওলামা।

সেখানে উপস্থিত হয়েছেন তাবলিগের পাঁচ উপদেষ্টার অন্যতম আল্লামা আশরাফ আলী মাওলানা নুরুল ইসলামসহ অসংখ্য উলামায়ে কেরাম।

এছাড়া ঢাকার ডেমরা, মাওয়াঘাট এবং কিশোরগঞ্জের শহীদী মসজিদসহ দেশের নানা স্থানেও একই দাবিতে বিক্ষোভ চলছে বলছে সর্বশেষ খবরে জানা গেছে।

 

বিক্ষোভে বেফাকের সিনিয়র সহসভাপতি ও তাবলিগের পাঁচ উপদেষ্টার অন্যতম সদস্য আল্লামা আশরাফ আলী বলেন, কুরআন সুন্নাহ মুতাবেক তাবলিগ জামাত চলছিল। কিন্তু মাওলানা সাদ কিছু কিছু বিতর্কিত বক্তব্য দিয়ে চলেছেন।

তিনি আরও বলেন, এ অবস্থায় বাংলাদেশের ওলামায়ে কেরাম মাওলানা সাদকে বিশ্ব ইজতেমায় আসতে দেবে না। বাংলাদেশে এলেও ফিরে যেতে হবে। আমরা এ্ জন্য সংগ্রাম করতে প্রস্তুত আছি।

সাদ কান্ধলভী বিমানবন্দর পার হয়ে চলে গেলেও এখনো বিক্ষোভ চলছে।

সর্বশেষ, কর্মসূচি সম্পর্কে জানতে চাইলে বিমানবন্দর থেকে মুফতি কেফায়াতুল্লাহ আজহারি জানান, ভারতের দারুল উলুম দেওবন্দ, বাংলাদেশের ওলামায়ে কেরাম ও তাবলিগের অনেক মুরব্বি ও সাথীদের মতামতের বিরোধিতা করে বাংলাদেশে আসছেন। এটা কখনোই উচিত নয়।

ওলামায়ে কেরামের দাবি এবং সরকারের ওয়াদা বাস্তবায়ন না করা পর্যন্ত এই অবস্থান কর্মসূচি চলবে ইনশাআল্লাহ।

Facebook Comments

Related posts

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

bodybanner 00