ব্রেকিং নিউজঃ

ফান্স-বেলজিয়াম ম্যাচে আলোচিত পাঁচ বিষয়

ফান্স-বেলজিয়াম ম্যাচে আলোচিত পাঁচ বিষয়
bodybanner 00

রাশিয়ার সেন্ট সিটার্সবার্গে মঙ্গলবার প্রথম সেমিফাইনালে ফ্রান্স এবং বেলজিয়াম মুখোমুখি হবে। এই ম্যাচের আগে সবচেয়ে আলোচিত বিষয় কিলিয়ান এমবাপ্পে কি তার দুর্দান্ত গতি এবং দক্ষতা দেখিয়ে ম্যাচ বের করে নিতে পারবেন। নাকি কেভিন ডি ব্রুইনি ম্যাচের ফল নিজেদের পক্ষে নিয়ে যাবেন।

ফেবারিটের তকমা পাওয়া একমাত্র দল হিসেবে ফ্রান্স কি টিকে থাকবে রাশিয়া বিশ্বকাপে। নাকি তারাও বিদায় নেবে। বেলজিয়াম কোচ ফ্রান্সের বিপক্ষে নতুন কোন কৌশল নিয়ে হাজির হবেন নাকি দেশম আবার কাউন্টার অ্যাটাকের নতুন রূপ দেখাবেন। আর এই সব প্রশ্ন বিবেচনায় নিয়ে ‘প্রেস অ্যাসোসিয়েশন স্পোর্টস’ প্রথম সেমিফাইনালের আগে সবচেয়ে বেশি আলোচিত পাঁচ বিষয় তুলে ধরেছে।

ফেবারিটের তকমা পাওয়া ফ্রান্স কি ফাইনালে যাবে: রাশিয়া বিশ্বকাপে ফেবারিটের তকমা ছিল ব্রাজিল, জার্মানি, ফ্রান্স এবং স্পেনের ওপর। মেসি এবং রোনালদোর কারণে আর্জেন্টিনা এবং পর্তুগালও পেয়েছিল ফেবারিট তকমা। কিন্তু প্রথম রাউন্ড এবং দ্বিতীয় রাউন্ডেই বিদায় হয়ে গেছে চার দল। ব্রাজিল বিদায় নিয়েছে কোয়ার্টার ফাইনাল থেকে। টিকে আছে কেবল ফ্রান্স। তারাও কি ফাইনাল পর্যন্ত টিকে থাকতে পারবে। শিরোপা কি এমবাপ্পে, গ্রিজম্যানদের হাতে উঠবে। এই প্রশ্ন এখন ফুটবল সমর্থকদের মুখে মুখে। ফ্রান্সের দলটা দুর্দান্ত। শক্তিমত্তা, গতি, ভারসাম্যের দিক থেকে তারা এখনও ফেবারিটের পালক গায়ে লাগিয়েই উড়ছে।

বেলজিয়াম কি ফ্রান্সকেও এক টোকায় ছিটকে দেবে: বেলজিয়ামের দলটা শক্ত। সোনালি প্রজন্ম বলা হয় তাদের। মাঠের সব পজিশনে সেরা খেলোয়াড় আছে বেলজিয়াম দলে। ব্রাজিলের বিপক্ষে ম্যাচের আগে তারা আন্ডারডগই ছিল। কিন্তু প্রথমার্ধের দুই টোকায় ব্রাজিলকে বাড়ির পথ দেখিয়ে দিয়েছে বেলজিয়াম। ফ্রান্সের বিপক্ষেও তারা কি নতুন কোন টোটকা নিয়ে হাজির হবে। সাবেক বিশ্ব চ্যাম্পিয়ন ফ্রান্সকে বিদায় করে দেওয়ার কোন পথ খুঁজে বের করবে। লুকাকু, হ্যাজার্ড এবং ডি ব্রুইনিরা কি এ ম্যাচেও অপ্রতিরোধ্য থাকবে। নাকি থিবোর্ট কোর্তোয়া গোলমুখ আটকে দেবে। সেটাও থাকবে দেখার।

বেলজিয়ামের বড় বাধার নাম কি এমবাপ্পে: অ্যান্তোনিও গ্রিজম্যান, পগবা, জিরুদরা আছেন ফ্রান্স দলে। কিন্তু বেলজিয়ামের বড় হুমকির নাম সম্ভবত ১৯ বছরের তরুণ কিলিয়ান এমবাপ্পে। শুধু বিশ্বকাপে নয়, বছর জুড়ে এই ফরোয়ার্ড প্রতিপক্ষের জন্য হুমকির কারণ হয়েই থেকেছে। পিএসজির হয়ে দারুণ পারফর্ম করেছে। দুর্দান্ত গতি, ড্রিবলিং এবং গোল করেই ফ্রান্স দলে সুযোগ মিলেছে তার। আর্জেন্টিনার বিপক্ষে নিজেকে দারুণ প্রমাণ করেছেন এমবাপ্পে। উরুগুয়ের বিপক্ষে গোল না পেলেও ভালো কিছু সুযোগ তৈরি করেছেন এই ‘নাম্বার টেন’। বেলজিয়ামের চিন্তা জুড়ে তাই থাকবেন এমবাপ্পে।

বেলিজিয়াম কোচের খেলানোর উন্মুক্ত ধরণ: ‘মাঠে আমাকে পরাজিত করা যেতে পারে তবে কৌশরে যাবে না।’ ব্রাজিল ম্যাচের পর বেলজিয়াম কোচ এমনটাই বলেছিলেন। তবে বিশ্বকাপ শুরুর আগে বেলজিয়ামের মতো দল পরিচালনার দক্ষতা কোচ মার্টিনেজের আছে কিনা তা নিয়ে ছিল প্রশ্ন। এভারটনে তিনি উন্মুক্তভাবে খেলোনোর কৌশলের কারণে বেশ সমালোচিত হয়েছেন।

তবে সেটাই কাজে দিয়েছে বিশ্বকাপে এসে। কারণ তার হাতে যে দল আছে তারা উন্মুক্তভাবে ম্যাচের এপাশ-ওপাশ করে বেড়াতে পারেন। আক্রমণ করতে পারেন আবার রক্ষণে দারুণ ভূমিকা রাখেন। স্বাধীনভাবে খেলানোর কৌশেই এই বেলজিয়ামকে বদলে দিয়েছে কিনা সেই প্রশ্ন অনেকের।

কারণ হতে পারেন থিয়েরো অঁরি: ফ্রান্সের হয়ে বিশ্বকাপ জিতেছেন। জিতেছেন ইউরো। ফ্রান্সের হয়ে রেকর্ড গোল তার নামের পাশে। এমবাপ্পের মতো তরুণ বয়সে বিশ্বকাপ খেলতে এসে অবাক করেছিলেন সবাইকে। সেই অঁরি এবার ফ্রান্সের শত্রু। কাজ করছেন বেলজিয়ামের কোচিং স্টাফদের একজন হয়ে। ফ্রান্সের খেলার ধরণ তার বেশ জানা।

বিশেষ করে ফরাসিদের কাউন্টার অ্যাটাকের যে কৌশল তা তো ফ্রান্স কোচ দেশম, জিদান এবং অঁরি মিলে চুড়ান্ত রূপ দিয়েছিলেন। রিয়াল মাদ্রিদেও জিদান কাউন্টার অ্যাটাক ‘শো’ দেখিয়েছেন। ফ্রান্স কোচ দেশম কাউন্টার অ্যাটাক নির্ভর। অঁরি নিশ্চয় জানেন, কিভাবে ফরাসি কাউন্টার ঠেকানো যায়। অনেকে তাই অঁরিকে বড় ম্যাচ ফ্যাক্টর মনে করছেন।

Related posts

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

bodybanner 00