নড়াইলে স্ত্রীকে আগুনের ছ্যাঁকা, স্বামী গ্রেফতার

নড়াইলে স্ত্রীকে আগুনের ছ্যাঁকা, স্বামী গ্রেফতার
bodybanner 00

নড়াইলের কালিয়ার গৃহবধূ মনিরা বেগম (২৩) আদালতে মামলা দায়ের করেও শেষ রক্ষা হয়নি। যৌতুক লোভী স্বামী পিটিয়ে ও তার মুখে গরম লোহার ছুরির ছ্যাঁকা দিয়ে ক্ষতবিক্ষত করে হত্যার চেষ্টা চালিয়েছে বলে অভিযোগ পাওয়া গেছে। মুমূর্ষু অবস্থায় ওই গৃহবধূকে প্রথমে কালিয়া উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ও পরে খুলনা মেডিকেন কলেজ (খুমেক) হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে।
নড়াইলে স্ত্রীকে আগুনের ছ্যাঁকা, স্বামী গ্রেফতারশুক্রবার দিনগত রাত দেড়টার দিকে উপজেলার বেন্দারচর গ্রামে জাহাঙ্গীর শেখের পরিত্যক্ত বাড়ীতে নৃশংস ওই নির্যাতনের ঘটনা ঘটেছে। ঘাতক স্বামী সাদ্দাম শেখকে (২৮) পুলিশ গ্রেফতার করেছে। ওই ঘটনায় মনিরা বেগম বাদি হয়ে শনিবার কালিয়া থানায় আরেকটি মামলা দায়ের করেন।

 

জানা যায়, কালিয়া উপজেলার বড়নাল ইউপির কুঞ্জপুর গ্রামের রজব আলীর মেয়ে মনিরা বেগমের সঙ্গে বেন্দারচর গ্রামের মৃত ফুল মিয়া শেখের ছেলে সাদ্দামের প্রায় এক বছর আগে বিয়ে হয়। বিয়ের পর থেকে যৌতুকের কারণে মনিরার ওপর নেমে আসে অমানুষিক নির্যাতন। এক পর্যায়ে নির্যাতন সহ্য করতে না পেরে মনিরা নড়াইল আদালতে যৌতুক আইনে মামলা করেন। মামলার ফাঁদ থেকে বাঁচতে সাদ্দাম স্ত্রীকে যৌতুকের জন্য আর নির্যাতন করবে না মর্মে আদালতে মুচলেকা দিয়ে মনিরাকে প্রায় তিন মাস আগে ঘরে তুলে নেয়। ঘটনার রাতে সাদ্দাম স্ত্রীসহ বাড়ির লোকজনকে জানায় তার নামে থানায় মামলা হয়েছে। পুলিশ তাকে গ্রেফতার করতে পারে।

 

আরো জানা যায়, গ্রেফতার এড়ানোর অজুহাতে স্ত্রীকে সঙ্গে নিয়ে রাত কাটানোর জন্য প্রতিবেশী জাহাঙ্গীর শেখের পরিত্যক্ত বাড়িতে চলে যায়। স্ত্রীকে সেখানে নিয়ে একই গ্রামের আনছার শেখের পুত্র কোবাদ শেখের সহযোগিতায় ঘরে আটকে বেধড়ক পিটুনি ও আগুন জ্বেলে লোহার ছুরি গরম করে মনিরার মুখে ও শরীরের বিভিন্ন স্থানে ছ্যাঁকা দেয়। পাশাপাশি ওই ছুরি দিয়েই তাকে হত্যার হুমকিও দিতে থাকে। মনিরার আর্ত চিৎকারে আশপাশের লোকজন জেগে উঠে কালিয়া থানা পুলিশকে খবর দেয় পরে পুলিশ স্বামীর নির্যাতনে ক্ষতবিক্ষত মনিরাকে ওই বাড়ি থেকে উদ্ধার করে কালিয়া উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করে। তার অবস্থা আশংকা জনক হওয়ায় উন্নত চিকিৎসার জন্য চিকিৎসকরা তাকে খুলনা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে পাঠায়।

 

কালিয়া থানার ওসি শেখ শমসের আলী ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করে বলেন, এ ঘটনায় মনিরা বেগম বাদি হয়ে সাদ্দাম ও তার সহযোগী কোবাদ শেখের নামে শনিবার থানায় মামলা করেছেন। প্রধান আসামি মনিরার স্বামী সাদ্দামকে (২৮) ইতোমধ্যে গ্রেফতার করা হয়েছে। অপর আসামিকে গ্রেফতারে পুলিশ তৎপর রয়েছে বলেও জানান ওসি।

Related posts

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

bodybanner 00