ব্রেকিং নিউজঃ

নীলফামারীতে প্রাথমিক বিদ্যালয়ের সহকারী শিক্ষক লিখিত পরীক্ষায় ডিভাইস সহ আটক ১৪ ॥

নীলফামারীতে প্রাথমিক বিদ্যালয়ের সহকারী শিক্ষক লিখিত পরীক্ষায়  ডিভাইস সহ আটক ১৪ ॥
bodybanner 00

 

ক্রাইম রিপোর্টার নীলফামারী ॥

নীলফামারীতে সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের সহকারী
শিক্ষক নিয়োগের লিখিত পরীক্ষা চলাকালে ইলেক্টনিক্স ডিভাইস ও মুঠোফোনের মাধ্যমে
বিভিন্ন পরীক্ষাকেন্দ্রে বসেই প্রশ্নের উত্তর সংগ্রহ করার অভিযোগে ডিমলার সহ
১৪জন পরীক্ষার্থীকে আটক করা হয়েছে। শুক্রবার জেলা সদর ও সৈয়দপুর উপজেলার সংশ্লিষ্ট
পরীক্ষা কেন্দ্রের কেন্দ্র সচিবগণ তাদের আটক করেন।
নিয়োগ পরীক্ষা কমিটির সভাপতি ও নীলফামারী জেলা প্রশাসক মোহাম্মদ খালেদ রহীম
জানান, শুক্রবার সকাল ১০টা হতে ঘন্টাকাল ব্যাপী লিখিত পরীক্ষা চলাকালে কক্ষে ইলেক্টনিক্স
ডিভাইস ও মুঠোফোন ব্যবহারের অপরাধে জেলার সৈয়দপুরের পাঁচ কেন্দ্রে ৮জন
পরীক্ষার্থী ও নীলফামারীর সদরের পাঁচ কেন্দ্র থেকে ৬জন সহ মোট ১৪ জনকে আটক হয়।
আটককৃতদের বিরুদ্ধে আইনানানুগ ব্যবস্থা গ্রহনের জন্য সংশ্লিষ্ট থানা পুলিশের
কাছে হস্তান্তর করা হয়েছে।
অনুষ্ঠিত সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের সহকারী শিক্ষক নিয়োগের লিখিত পরীক্ষায়
জেলায় অংশ নেয় প্রায় সাড়ে ২৩ হাজার চাকুরী প্রার্থী। জেলার ছয় উপজেলার
পরীক্ষার্থীদের কেন্দ্র করা হয় জেলা সদর ও সৈয়দপুর উপজেলায়।
নীলফামারী সদরের বিভিন্ন কেন্দ্রে আটককৃতরা হলেন জেলা সদরের পাটোয়ারীপাড়ারর
সুকুমার রায়ের স্ত্রী অপু রাণী রায়, একই উপজেলার সুন্দর গোড়গ্রামের সোহাবুল
জাহানের স্ত্রী জেসমিন নাহার, ডিমলা উপজেলার গয়াবাড়ি ইউনিয়নের হামিদুর
রহমানের মেয়ে সেলিনা আক্তার, একই এলাকার শরিফুজ্জামান সবুজের স্ত্রী মারিয়া
হোসেন লিপু, একই উপজেলার ডালিয়া এলাকার আব্দুল জলিলের স্ত্রী নাজমা আক্তার এবং
কিশোরীগঞ্জ উপজেলার পানিয়াল পুকুর গ্রামের আবু হোসেনের মেয়ে শরিফা আক্তার।
অপর দিকে সৈয়দপুরে আটককৃতরা হলেন- নীলফামারীর ডিমলা উপজেলার নাউতারা
ইউনিয়নের আবুজার রহমানের ছেলে আরাফাত সিদ্দিক শাসন, কিশোরীগঞ্জ উপজেলার
রণচন্ডি ইউনিয়নের আরেফুজ্জামানের স্ত্রী লাভলী আক্তার, একই উপজেলার বালাপাড়া এলাকার
প্রমোদ চন্দ্র রায়ের মেয়ে পলি রায়, আকাশকুড়ি এলাকার আবুল কালাম আজাদের মেয়ে
তাহিরা পারভীন, কিশোরীগঞ্জ উপজেলার সদর ইউনিয়নের মুশা গ্রামের সুমনের স্ত্রী
উম্মে হাবিবা, বাজে ডুমুরিয়া গ্রামের ইয়াছিন আলীর ছেলে মিজান আহমেদ,
নীলফামারী সদর উপজেলার টুপামারী ইউনিয়নের আতিয়ার রহমানের ছেলে আলমগীর
হোসেন এবং দিনাজপুরের চিরিরবন্দর উপজেলার জিয়াউর রহমানের স্ত্রী আরিফা নাজনীন।
ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করেছন নীলফামারী সদর থানার ওসি বাবুল আকতার ও সৈয়দপুর
থানার ওসি শাহজাহান পাশা।

মহিনুল ইসলাম সুজন,নীলফামারী প্রতিনিধি॥

Related posts

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

bodybanner 00