ব্রেকিং নিউজঃ

নায়িকা যখন মা

নায়িকা যখন মা
bodybanner 00

মাতৃত্বের স্বাদ মানেই নারীর পূর্ণতা। নারী তার যে পরিচয়েই পরিচিত হোক মা পরিচয় দিতেই সর্বাপেক্ষা গর্ব অনুভব করেন। মা এমন একটি শব্দ যে শব্দের মাঝেই লুকিয়ে রয়েছে ভিন্নরকম ভালো লাগার এক আমেজ, আর স্বর্গীয় প্রশান্তি। তবে মা হওয়া মানেই কিন্তু থেমে যাওয়া নয়। বরং চলার পথ আরও সুন্দর হওয়া। পাওয়ার আনন্দের পূর্ণতা আগামীর পথে এগিয়ে যাওয়া।

ঢাকাই রুপালি জগতের অনেক নায়িকারা মা হয়েছেন । তবে এ মা হওয়া তাদের দমিয়ে রাখতে পারেননি। বরং মা হওয়ার পর আরও ফিগার ফিটনেস সচেতন হয়েছেন তিনি। হয়েছেন দায়িত্বশীলও। কাজ করে যাচ্ছেন সমান তালে। ঢাকাই চলচ্চিত্রের এ সময়ের যে নায়িকারা মা হয়েছেন ফিগার ফিটনেসে তাদের এখনও তারা লাখো তরুণের ক্রাশ। সৌন্দর্যে ভাটা পড়েনি একটুও। রূপ আর অভিনয় দিয়ে মুগ্ধতা ছড়িয়ে যাচ্ছেন দিনের পর দিন। দারুণ স্টাইলিশ এই তারকারা সন্তানও সামলাচ্ছেন সমান তালে।

মৌসুমী, চিত্রনায়িকা

১৯৯৬ সালের ২ আগস্ট তারিখে চিত্রনায়ক ওমর সানীর সঙ্গে বিবাহ বন্ধনে আবন্ধ হন এ নায়িকা। দাম্পত্য জীবনে মৌসুমী ফারদিন এহসান স্বাধীন (ছেলে) এবং ফাইজা (মেয়ে) নামের দুই সন্তানের মা। নায়িকা হিসেবে সফলতার বাইরে মা হিসেবেও সফল তিনি। সংসার এবং অভিনয় দু’দিকই সমানতালে চালিয়ে যাচ্ছেন। সন্তানদের কাছে আদর্শ মা হতে চেয়েছেন সবসময়। আজ সন্তানরা তাকে আদর্শ হিসেবেই পরিচয় দিয়ে থাকেন। আর এ নিয়ে মৌসুমীও বেশ গর্বিত।

শাবনূর, চিত্রনায়িকা

চিত্রনায়িকা শাবনূরের জনপ্রিয়তা নিয়ে নতুন করে বলার কিছুু নেই। ঢাকাই ছবির দর্শকদের কাছে এক নামে পরিচিতি যার। উপহার দিয়েছেন একের পর এক হিট ছবি। এ নায়িকাও হয়েছেন মা। শাবনূরের স্বামীর নাম অনিক। তিনিও অভিনেতা ছিলেন। ছিলেন এ কারণে বলা, এখন আর অভিনয়ের সঙ্গে তার কোনো সম্পৃক্ততা নেই। ‘বধূ তুমি কার’ ছবিতে প্রথম একসঙ্গে অভিনয় করেন। সেখান থেকে তাদের মধ্যে একটা বন্ধুত্বপূর্ণ সম্পর্ক তৈরি হয়। ২০১১ সালের ৬ ডিসেম্বর অনিকের সঙ্গে শাবনূরের আংটি বদল হয় এবং ২০১২ সালের ২৮ ডিসেম্বর তাকে বিয়ে করেন। এরপর তিনি অস্ট্রেলিয়ায় বসবাস শুরু করেন। ২০১৩ সালের ২৯ ডিসেম্বর তিনি ছেলেসন্তানের মা হন। তার ছেলের নাম আইজান নিহান। শাবনূর এখন অভিনয় না করলেও সমান জনপ্রিয়। মা হিসেবেও সফল তিনি। তবে চেষ্টা করছেন অভিনয়ে ফিরে আসার। ছবি পরিচালনার ঘোষণাও দিয়েছেন তিনি।

পূর্ণিমা, চিত্রনায়িকা

পূর্ণিমার চলচ্চিত্র জগতে পথচলা শুরু হয়েছিল জাকির হোসেন রাজু পরিচালিত ‘এ জীবন তোমার আমার’ ছবির মাধ্যমে। কাজী হায়াৎ পরিচালিত ‘ওরা আমাকে ভালো হতে দিল না’ চলচ্চিত্রে অভিনয়ের জন্য শ্রেষ্ঠ অভিনেত্রী হিসেবে ২০১০ সালে প্রথম জাতীয় চলচ্চিত্র পুরস্কার লাভ করেন। ২০০৭ সালের ৪ নভেম্বর পারিবারিকভাবে আহমেদ জামাল ফাহাদকে বিয়ে করেন। ২০১৪ সালের ১৩ এপ্রিল তিনি প্রথম কন্যা সন্তানের মা হন। তার মেয়ের নাম আরশিয়া উমাইজা। এখন পূর্ণিমা অভিনয় চালিয়ে যাচ্ছেন। সিনেমায় দেখা না গেলেও নাটকে নিয়মিত তিনি। পাশাপাশি উপস্থানার সঙ্গেও নিজেকে সম্পৃক্ত রেখেছেন।

নিপুণ, চিত্রনায়িকা

ঢাকাই ছবির নায়িকা নিপুণ। এখন অভিনয়ের চেয়ে ব্যবসা নিয়েই ব্যস্ত রয়েছেন তিনি। অভিনয়ের জন্য দু’বার ঘরে তুলেন জাতীয় চলচ্চিত্র পুরস্কার। নায়িকা হলেও তিনি একজন মা। নিপুণের মেয়ের নাম তানিশা হোসেন। ব্যবসা নিয়ে ব্যস্ত থাকলেও অভিনয়েও নিয়মিত থাকার চেষ্টা করে যাচ্ছেন এ নায়িকা। সম্প্রতি তার অভিনীত ‘ধূসর কুয়াশা’ নামে এ ছবি সেন্সর ছাড়পত্র পেয়েছে।

অপু বিশ্বাস, চিত্রনায়িকা

বলা হয়, ঢালিউড কুইন অপু বিশ্বাস। ২০০৮ সালে ১৮ এপ্রিল নায়ক শাকিব খানকে গোপনে বিয়ে করেন। ২০১৭ সালে একটি টেলিভিশনে সরাসরি সাক্ষাৎকারে শাকিব খানের সঙ্গে তার বিয়ের কথা প্রকাশ করেন। অপু ধর্মান্তরিত হয়ে মুসলমান হন এবং নাম পরিবর্তন করে রাখেন অপু ইসলাম খান। ২০১৬ সালের ২৭ সেপ্টেম্বর ভারতের শিলিগুড়িতে তাদের ছেলে সন্তান আব্রাম খান জয় জন্মগ্রহণ করে। এরই মধ্যে শাকিবের সঙ্গে তার বিচ্ছেদও হয়ে গেছে। এখন সন্তান জয়কেই নিয়েই অপুর আগামী দিনের পরিকল্পনা। জয় ইতিমধ্যে বাবা শাকিব খানের মতোই সুপার কিড হয়ে উঠছেন। ইন্সট্রাগে ফলোয়ারের দিক থেকে বাবা শাকিব খানকেও পেছনে ফেলে দিয়েছেন তিনি। তবে এসব আইডি অপুর ভক্তরাই পরিচালনা করছেন।

সোহানা সাবা, অভিনেত্রী

মা হওয়ার পর নায়িকাদের গ্ল্যামার থাকে না, এ কথাটি যে মিথ্যে তার প্রমাণ দিয়েছেন অনেক নায়িকাই। এ তালিকায় উজ্জ্বল উদাহরণ সোহানা সাবা। মা হওয়ার পরও তিনি ক্যারিয়ারে দুর্দান্ত সময় পার করছেন।

বেড়েছে গ্ল্যামারও। ছোট পর্দায় নিজের ম্যাজিক দেখিয়ে পা বাড়িয়েছেন বড় পর্দায়, সেখানেও কুড়িয়েছেন সুনাম। ক্যারিয়ার সুবর্ণ সময় পরিচালক মুরাদ পারভেজকে বিয়ে করেন তিনি। বিয়ের ক’বছর পরই পুত্র সন্তানের মা হন সাবা। সন্তানের নাম স্বরবর্ণ। স্বামীর সঙ্গে বিচ্ছেদ ঘটেছে। এখন ছেলের সঙ্গেই সময় ভালো সময় কাটছে তার। ছেলেকে সময় দেয়ার ফাঁকে নিয়মিত ছোট পর্দা এবং বড় পর্দা দুই জায়গাতেই সমান তালে অভিনয় করছেন। বর্তমানে ‘পাপকাহিনী’ নামে একটি ছবির শুটিং নিয়ে ব্যস্ত রয়েছেন তিনি।

Related posts

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

bodybanner 00