ব্রেকিং নিউজঃ

তো বেশী বুঝো কেন ?

তো বেশী বুঝো কেন ?
bodybanner 00

নিহার সরকার

নজরুল জয়ন্তী ২০১৮ উপলক্ষে ২৫ মে ত্রিশালে রাষ্ট্রপতি ও জাতীয় কবি কাজী নজরুল ইসলাম বিশ্ববিদ্যালয়ের আচার্য মোঃ আবদুল হামিদ এর  আগমন উপলক্ষে  রাস্তা সংস্কার করেছিলো বিশ্ববিদ্যালয়ের পরিকল্পনা দপ্তর । রাস্তা সংস্কারের ৪ দিনের মাথায় বেহাল অবস্থায় পরিণত হয়েছে দোলনচাঁপা ছাত্রী হল সংলগ্ন রাস্তাটি ।

গত ২০ মে থেকে দৌড় ঝাপ করে রাস্তা সংস্কার করতে দেখা গেছে পরিকল্পনা দপ্তরের পরিচালক প্রকৌশলী মোঃ হাফিজুর  রহমানকে । তখন তাকে রাস্তার ব্যয় বাজেট সম্পর্কে জানতে চাইলে তিনি বলেন কাজ করতে যা ব্যয় হবে, সেটাই ব্যয় এর জন্য নির্ধারিত বাজেট । বিশ্ববিদ্যালয়ের অভ্যন্তরীণ সড়কগুলো বারবার সংস্কার করতে দেখা যায় কিন্তু স্থায়ী কোন সমাধানে আগ্রহী হতে দেখা যায়নি বিশ্ববিদ্যালয়ের পরিকল্পনা দপ্তরকে । যার দরুন ৪ দিনের মাথায় ঢেবে যেতে দেখা গেছে । বার বার সংস্কার করে রাস্তা নির্মানে ব্যয় হচ্ছে লক্ষাধিক পরিমান অর্থের । যা সামগ্রিক বিবেচনায় অর্থের অপচয় ।

বিশ্ববিদ্যালয়ের বিভিন্ন ভবন নির্মানেও দেখা গেছে এই দপ্তরের উদাসীনতা । এক যুগ অতিবাহিত হওয়া বিশ্ববিদ্যালয়টিতে নতুন কাজ শুরুর বিপরীতে বারবার কেবল দেখা যায় সংস্কার করতে ।

রাষ্ট্রপতির আগমন উপলক্ষে দোলনচাঁপা ছাত্রী হল সংলগ্ন রাস্তার নির্মানের ৪ দিনের মাথায় বেহাল অবস্থা কেন আর নতুন কাজ না করে বার বার সংস্কার কাজ করা হচ্ছে কেন ? এমন প্রশ্নের জবাবে বিশ্ববিদ্যালয়ের পরিকল্পনা দপ্তরের পরিচালক প্রকৌশলী মোঃ হাফিজুর  রহমান বলেন- ‘এতো বেশী বুঝো কেন ? যতোবার সংস্কার দরকার ততোবার হবে। স্থায়ী তো করছি না। স্থায়ী রাস্তা হতে সময় লাগবে । আর রাস্তা ভাঙতেই পারে ঢাকা-ময়মনসিংহ মহাসড়কের রাস্তা ভাঙলে এটা আরো বেশীই ভাঙতে পারে । সংস্কার কাজই চলবে তাতে যা ব্যয় হওয়ার দরকার তা হবেই ।

এ বিষয়ে বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থী নিলয় মাহমুদ বলেন জোড়াতালির দপ্তর বা বিল্ডিং বানানোর দপ্তরের যে অবস্থা তাতে কবে আমরা ভুলেই যাই যে এই দপ্তরের আসল নাম পরিকল্পনা দপ্তর । এই দপ্তর শিক্ষার্থীদের তথা বিশ্ববিদ্যালয়কে অপরিকল্পনায় সাজিয়ে অর্থের অপচয় করে নিজেদের পকেট ভারি করছে । তাই অনতিবিলম্বে এই দপ্তরের র্প্রতি মনযোগ দিতে অনুরোধ করবো উপাচার্য স্যারকে ।

 

উল্লেখ্য বিশ্ববিদ্যালয়ের নির্মানাধীন ভবন গুলোতেও রয়েছে নানা রকমের অভিযোগ। একাধিক শিক্ষক-শিক্ষার্থী মনে করেন নির্ধারিত সময়ের মধ্যে ভবন নির্মানের কাজ সমাপ্ত করা সম্ভব নয় । বিশ্ববিদ্যালয়ে এই দপ্তরের অপরিকল্পিত কাজের জন্য বিতর্কিত একটি দপ্তরের নাম পরিকল্পনা দপ্তর হিসেবেই অধিক সমাধিত যা শিক্ষার্থীদের কাছে জোড়াতালির দপ্তর বা বিল্ডিং বানানোর দপ্তর হিসেবে পরিচিত ।

 

 

Related posts

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

bodybanner 00