টেস্টে সাকিবদের সর্বনিম্ন রানের লজ্জা

টেস্টে সাকিবদের সর্বনিম্ন রানের লজ্জা
bodybanner 00

ওয়েস্ট ইন্ডিজের বিপক্ষে প্রথম টেস্টের প্রথম ইনিংসে অ্যান্টিগায় নিজেদের সর্বনিম্ন রানে অলআউট হয়ে গেছে বাংলাদেশে। এছাড়া অলআউট হয়েছে টেস্টে নিজেদের সর্বনিম্ন ওভার ব্যাট করেও। এর আগে বাংলাদেশের টেস্টে সর্বনিম্ন স্কোর ছিল ৬২। ২০০৭ সালে শ্রীলংকার বিপক্ষে ওই রান করে গুটিয়ে যায় বাংলাদেশ। আর বুধবার অ্যান্টিগায় মাত্র ৪৩ রানে শেষ হয়ে গেছে বাংলাদেশের প্রথম ইনিংস। এছাড়া এর আগে টেস্টের এক ইনিংসে ২৫.২ ওভার ব্যাট করতে পেরেছিলে বাংলাদেশ। কিন্তু এবার ওয়েস্ট ইন্ডিজ বোলারদের সামনে টিকতে পারলো মাত্র ১৮.৪ ওভার।

বাংলাদেশের টেস্টে সর্বনিম্ন রানের তালিকায় ৬২ রান ছাড়াও ২০০৫ সালে শ্রীলংকার বিপক্ষে ৮৬, ওয়েস্ট ইন্ডিজের বিপক্ষে ৮৭ এবং শ্রীলংকার বিপক্ষে ৮৯ রানের অলআউট হওয়ার রেকর্ড আছে। এছাড়া শ্রীলংকা এবং দক্ষিণ আফ্রিকার বিপক্ষে ৯০ রানের দুটি ইনিংস আছে বাংলাদেশের। ১০০ রানের নিচে অলআউট হওয়া বাংলাদেশের ১০ম ইনিংস এটি। তবে টেস্টের ইতিহাসে সর্বনিম্ন রানের ইনিংসটি নিউজিল্যান্ডের নামে লেখা। ১৯৫৫ সালে ইংল্যান্ডের বিপক্ষে মাত্র ২৬ রানে অলআউট হয়েছিল কিউইরা।

শুরুতে ওয়েস্ট ইন্ডিজ ৯ ওভারের মধ্যেই বাংলাদেশের পাঁচ উইকেট তুলে নেয়। ওপেনার তামিম ইকবালের পর মুনিমুল, সাকিব, মুশফিক মাহমুদুল্লাহরা সবাই ফিরে যান একে একে। আউট হয়ে ফিরে যাওয়া ব্যাটসম্যানরা কেউ ১০ এর ঘরে রান করতে পারেনি। ষষ্ঠ উইকেটে হিসেবে সাজঘরে ফেরা লিটস দাস করেন সর্বোচ্চ ২৫ রান।

এছাড়া কেমার রোসের পরপর দুই বলে ফিরে যান অধিনায়ক সাকিব আল হাসান এবং সহ অধিনায়ক মাহমুদুল্লাহ। মুশফিক, সাকিব এবং মাহমুদুল্লাহ কোন রান করতে পারেননি দলের হয়ে। ১১ জনের মধ্যে চারজন শূন্য রানে ফিরেছেন। তামিম করেছেন মোটে ৪ রান। আর মুমিনুলের অবদান ১। কেরাম রোচ ৮ রানে নিয়েছেন ৫ উইকেট। এছাড়া কামিন্স নিয়েছেন ৩টি এবং অধিনায়ক হোল্ডার নিয়েছেন ২টি উইকেট।

বাংলাদেশের  বিপক্ষে  দুই টেস্ট সিরিজের প্রথম ম্যাচে টসে জিতে ফিল্ডিং করার সিদ্ধান্ত নেয় স্বাগতিক ওয়েস্ট ইন্ডিজ। অ্যান্টিগায় বাংলাদেশ দল রাত ৮টায় ব্যাট হাতে মাঠে নামে। প্রথম টেস্টে বাংলাদেশ দলে অভিষেক হয়েছে পেসার আবু জায়েদের। এছাড়া পেসার রুবেল হোসেন এবং কামরুল ইসলাম রাব্বি আছেন বাংলাদেশ দলে। স্পিন আক্রমণে আছেন মেহেদি মিরাজ।

তবে বাংলাদেশ ওয়েস্ট ইন্ডিজের বিপক্ষে তিনজন উইকেট রক্ষক ব্যাটসম্যান নিয়ে মাঠে নেমেছে। এদের মধ্যে তামিমের ওপেনিং সঙ্গী হিসেবে আছেন লিটন দাস। দলে অাছেন মুশফিকুর রহিম। তবে উইকের রক্ষকের গ্লাভস দেখা যাবে নুরুল হাসানের হাতে। ক্যারিবিওদের বিপক্ষে প্রথমে ব্যাট করা বাংলাদেশের জন্য কিছুটা চ্যালেঞ্জ হবে। কারণ উইকেটে ঘাস আছে। আর এ কারণে পেস আক্রমণ থেকে বেশি সহায়তা পাবেন উইন্ডিজরা।

ব্যাট করার বিষয়ে বাংলাদেশ অধিনায়ক সাকিব আল হাসান বলেন, ‘এটা আমাদের জন্য কঠিন এক সিরিজ। তবে আমাদের দল ভালো মতো প্রস্তুতি নিয়েছে। এখন সেটা মাঠে দেখাতে হবে।’

বাংলাদেশের প্রথম ইনিংস: তামিম ইকবাল-৪, লিটন দাস-২৫, মুমিনুল-১, সাকিব-০, মুশফিক-০, মাহমুদুল্লাহ-০, নুরুল-৪, মেহেদী-১, কামরুল ইসলাম-০, রুবেল-৬ (নট আউট), আবু জায়েদ-২।

ওয়েস্ট ইন্ডিজ বোলিং: কেমার রোস-৮/৫, গ্যাব্রিয়েল-১৪/০, হোল্ডার-৪.৪/২, মিগুয়েল কামিন্স-১১/৩।

বাংলাদেশ দল: তামিম ইকবাল, লিটস দাস, মুমিনুল হক, মুশফিকুর রহিম, সাকিব আল হাসান (অধিনায়ক), মাহমুদুল্লাহ (সহ অধিনায়ক), নুরুল হাসান (উইকেট রক্ষক), মেহেদি মিরাজ, রুবেল হোসেন, আবু জায়েদ, কামরুল ইসলাম।

ওয়েস্ট ইন্ডিজ দল: ক্রেগ ব্রাফেট, ডেভন স্মিথ, কাউরান পাওয়েল, শাই হোপ, রোস্টন চেইজ, শেন ডাউরিচ (উইকেট রক্ষক), জেসন হোল্ডার (অধিনায়ক), দেবেন্দ্র বিশু, কেমার রোচ, মিগুয়েল কামিন্স, শ্যানন গ্যাব্রিয়েল।

Related posts

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

bodybanner 00