brandbazaar globaire air conditioner

জোরে ঘুরছে পৃথিবী, চিন্তিত বিজ্ঞানীরা

জোরে ঘুরছে পৃথিবী, চিন্তিত বিজ্ঞানীরা
epsoon tv 1

গত ৫০ বছরের তুলনায় পৃথিবী সময়ের চেয়ে দ্রুত গতিতে ঘুরছে। এ নিয়ে মহাকাষ-বিজ্ঞানীদের কপালে দুশ্চিন্তার ভাঁজ পড়েছে। বর্তমানে দেখা যাচ্ছে, পৃথিবী ২৪ ঘণ্টার আগেই তার নিজ কক্ষপথে একবার ঘুরে আসছে।

একদিন মানে ২৪ ঘণ্টা। সময়ের এই মাপকাঠি সকলেরই জানা। পৃথিবীর নিজ অক্ষের চারদিকে ঘুরতে যে সময় লাগে, সে হিসেবেই একদিন গণনা করা হয়। কিন্তু এখানেই তৈরি হয়েছে জটিলতা। ইন্টারন্যাশনাল আর্থ রোটেশন অ্যান্ড রেফারেন্স সার্ভিসের পর্যবেক্ষণে বলা হয়েছে, পৃথিবী ২৪ ঘণ্টার কম সময়ের মধ্যে ঘূর্ণন শেষ করছে। বর্তমানে পৃথিবী ২৪ ঘণ্টার ০.৫ মিলি সেকেন্ডের কম সময় নিয়ে ঘুরছে। ফলে ২৪ ঘণ্টা থেকে ০.৫ মিলি সেকেন্ড কমে গেছে। সময়ের এই সামান্য পরিবর্তন সাধারণ মানুষের জন্য তেমন সমস্যা সৃষ্টি না করলেও বিজ্ঞানীরা বিষয়টি নিয়ে রীতিমতো চিন্তিত।

কেননা ১৯৬০ সাল থেকেই স্যাটেলাইট এবং অন্যান্য মহাজাগতিক যোগাযোগ ব্যবস্থার জন্য সময়ের সঠিক হিসাব রাখা গুরুত্বপূর্ণ হয়ে দাঁড়িয়েছে। ১৯৭০ সাল থেকে ২০১৬ সাল পর্যন্ত মোট ২৭ লিপ সেকেন্ড যুক্ত করতে হয়েছে অ্যাটমিক ঘড়িতে। কারণ সেসময় পৃথিবী ধীরে ঘুরছিল। কিন্তু এবার ঘুরছে জোরে। ফলে এবার কি একটি নেগেটিভ লিপ-সেকেন্ড যোগ করা হবে? এই প্রশ্নের এখনও কোনো উত্তর দেননি বিজ্ঞানীরা। তবে পৃথিবীর আহ্নিক গতির সময় কেন কমে আসছে, এটি একটি বড় প্রশ্ন।

প্রথমে মনে করা হয়েছিল পৃথিবী সূর্যের খুব কাছাকাছি চলে আসছে বলেই আহ্নিক গতি বেড়ে গেছে। কিন্তু আরও নিখুঁত পর্যবেক্ষণে দেখা যায়, সূর্য থেকে পৃথিবীর দূরত্ব যতটা কমেছে তারচেয়ে অনেক কমেছে দিনের দৈর্ঘ্য।

অতএব এর কারণ অন্যকিছু। এমনকি বিশ্ব-উষ্ণায়নকেও এজন্য দায়ী করছেন কেউ কেউ। মেরু অঞ্চলের বরফ গলে ভরের বণ্টন বদলে যাচ্ছে। এটিই সম্ভবত দিনের দৈর্ঘ্য কমে আসার প্রকৃত কারণ। তবে আরও বিশদ গবেষণা না করে কোনো কিছুই নিশ্চিতভাবে বলা সম্ভব নয় বলে জানিয়েছেন বিজ্ঞানীরা। গত বছরের জুন থেকে ২৪ ঘণ্টার কম সময়ের মধ্যে নিজ কক্ষপথে ঘূর্ণন শেষ করছে পৃথিবী।


epsoon tv 1

Related posts

body banner camera