ব্রেকিং নিউজঃ

চাদা না পেয়ে তরুনীর প্রজোযনতন্ত্রে আঘাত

চাদা না পেয়ে তরুনীর প্রজোযনতন্ত্রে আঘাত
bodybanner 00

শরীয়তপুর জেলার ভেদরগঞ্জ উপজেলার সখিপুর থানার সখিপুর বাজার ছৈয়ালকান্দি গ্রামে জমি সংক্রান্তের বিরোধের জের ধরে প্রতিবেশী এক ছেলের সঙ্গে প্রেমের সম্পর্কের অপবাদ দিয়ে এক তরুণীকে বেদম মারপিট ও গোপনাঙ্গে রড দিয়ে খুঁচিয়ে মারাত্মক জখম করার অভিযোগ পাওয়া গেছে।

মঙ্গলবার সকালে শরীয়তপুর সদর হাসপতােল মা ও মেয়ে দুজনকে চিকিৎসা রত অবস্থায় পাওয়া গেলো। ৩১ ডিসেম্বর রোববার দিবাগত রাত সাড়ে ১০টার দিকে এ ঘটনা ঘটে। তখন ওই কিশোরীর মাকেও বেদম মারপিট করে আহত করা হয়। অাহত অবস্থায় সোামবার ০১ জানুয়ারী শরিয়তপুর সদর হাপতালে ভর্তি করা হয়।

এ প্রতিবেদনটি লেখা পর্যন্ত এ ঘটনায় কোনো মামলা হয়নি। কিশোরী সুমি আক্তার ভেদরগঞ্জ উপজেলার সখিপুর থানার সখিপুর বাজার ছৈয়ালকান্দি গ্রামের বাবুল দেওয়ানের সেজো মেয়ে। সুমী আক্তার দুই বছর যাবত সৌদি আরবে গৃহকর্মীর কাজ করছেন।

স্থানীয় ও নির্যাতিত তরুণী সুমি আক্তারের কাছ থেকে জানা গেছে, উপজেলার সখিপুর থানার সখিপুর বাজার ছৈয়ালকান্দি গ্রামের বাবুল দেওয়ানের সঙ্গে চাচাতো ভাই মালেক দেওয়ান ও সুমন দেওয়ান গংদের সঙ্গে দীর্ঘদিন ধরে জমি সংক্রান্ত বিরোধ চলে আসছে। এ ঘটনা নিয়ে এলাকায় একাধিকবার সালিশ বসে। একই গ্রামের বুলবুল সরদার মালেক দেওয়ানদের পক্ষ নিয়ে বিরোধীয় জমি কিনতে চায়। কিন্তু এতে সুমির পরিবার রাজি হয়নি।

 

গত বৃহস্পতিবার (২৮ ডিসেম্বর) তরুনী সুমি আক্তার (২০) সৌদি আরব থেকে ছুটিতে বাংলাদেশের নিজ গ্রামে আসেন। সৌদি থেকে আসার পর বাবা-মার থাকার জন্য সেই জমিতে তিনতলা বিশিষ্ট বিল্ডিংয়ের কাজ শুরু করেন সুমি। তখন সুমির পরিবার থেকে ২ লাখ টাকা দাবি করেন বুলবুল সরদার। ২ লাখ টাকা না দেয়ায় সুমির সঙ্গে বুলবুল সরদারের শ্যালক আরিফ দেওয়ানের প্রেমের সম্পর্ক রয়েছে বলে অপবাদ দেয় বুলবুল সরদার ও তার স্ত্রী মনি আক্তার।

এ ঘটনায় রোববার (৩১ ডিসেম্বর) রাত সাড়ে ১০টার দিকে সুমি ও তার মা জোসনা বেগম নিজেদের ঘরে বসে কথা বলছিলেন। এমন সময় বুলবুল সরদার ও তার স্ত্রী মনি বেগম লোকজন নিয়ে ঘরে ঢুকে সুমির বাবা বাবুল দেওয়ানকে মারার জন্য খোঁজাখুজি করে। তাকে না পেয়ে তারই কন্যা সৌদি প্রবাসী তরুনী সুমি আক্তারকে বেদম মারপিট করে।

হামলাকারীরা সুমি আক্তারের গোপনাঙ্গে রড দিয়ে খুঁচিয়ে মারাত্মক জখম করে। তখন সু‌মির প্রচুর রক্তক্ষরণ হ‌তে থাকে। এ সময় সুমির মা তাকে রক্ষা করার জন্য এগিয়ে গেলে তাকেও পিটিয়ে আহত করে। সোমবার সকালে সুমির কাকি হালিমা বেগম ও স্থানীয় লোকজন মা-মেয়েকে উদ্ধার করে শরীয়তপুর সদর হাসপাতালে নিয়ে ভর্তি করেন।

আহত সুমি আক্তারের মা জোসনা বেগম বলেন, আমরা বাড়িতে একটি বিল্ডিং নির্মাণ করছি, এ কারণে বুলবুল সরদার ও মালেক দেওয়ান দুই লাখ টাকা চাঁদা দাবি করেছিল। টাকা দিতে রাজি না হলে তারা আমার মেয়ে সুমিকে ও আমাকে মারধর করে। আমাকে ও আমার মেয়েকে পিটিয়ে আহত করেছে। শুধু তাই নয় রড দিয়ে আমার মেয়ের যৌনাঙ্গে খুঁচিয়ে মারাত্মক রক্তাক্ত জখম করেছে ওরা। আমি এর বিচার চাই।

এ ব্যাপারে সদর হাসপাতালের সিনিয়র কনসালটেন্ট সাজেদা খাতুন বলেন, সুমির যৌনাঙ্গসহ শরীরের বিভিন্ন স্থানে আঘাতের চিহ্ন রয়েছে। এ ব্যাপারে সদর হাসপাতালের মেডিকেল অফিসার ডা. শেখ মো. এহসানুল ইসলাম বলেন, সুমি নামে একটি মেয়ে সোমবার দুপুরে হাসপাতালে ভর্তি হয়। সুমির শরীরের বিভিন্ন স্থানে আঘাতের চিহ্ন রয়েছে।

সখিপুর থানা পুলিশের ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মো. মঞ্জুরুল হক আকন্দ বলেন, ঘটনাটি শুনে ঘটনাস্থল গিয়েছিলাম। ক্ষতিগ্রস্থ পরিবারকে থানায় অাসতে বলা হয়েছে, মামলা করতে আসলে মামলা নেয়া হবে।

Related posts

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

bodybanner 00