১২ ফুটবলার ও তাদের কোচকে উদ্ধারে গিয়ে ডুবুরি নিহত

১২ ফুটবলার ও তাদের কোচকে উদ্ধারে গিয়ে ডুবুরি নিহত
bodybanner 00

থাইল্যান্ডের গুহায় ১২ কিশোর ফুটবলার ও তাদের কোচকে উদ্ধার করতে গিয়ে একজন ডুবুরি মারা গেছেন। নিহত ডুবুরির নাম সামান গুনান (৩৮)। খবর বিবিসির।

সামান গুনান থাই নেভির একজন সাবেক সদস্য। গুহায় কিশোরদের আটকে পড়ার খবর শুনে তিনি স্বেচ্ছায় উদ্ধার অভিযানে অংশ নিয়েছিলেন। উদ্ধার অভিযানে গুনানের কাজ ছিল অক্সিজেন সরবরাহ করা। গুহা থেকে বের হওয়ার সময় অক্সিজেনের ঘাটতির কারণে শুক্রবার সকালে তিনি মারা যান।

সামান গুনার একজন অভিজ্ঞ রানার এবং সাইক্লিস্ট ছিলেন। ওই উদ্ধার অভিযানের অন্যতম গুরুত্বপূর্ণ সদস্য ছিলেন তিনি। গুহা থেকে কিশোরদের উদ্ধারে নৌবাহিনীর ডুবুরি, সামরিক বাহিনী এবং বেসামরিক স্বেচ্ছাসেবকসহ প্রায় এক হাজার উদ্ধারকারী কাজ করছেন।

থাইল্যান্ডের উত্তরে চিয়াং রাই এলাকার থাম লুয়াং গুহায় বেড়াতে গিয়ে গত ২৩ জুন নিখোঁজ হয় দেশটির ১২ কিশোর ফুটবলার ও তাদের কোচ। একটি প্রশিক্ষণ পর্বে অংশ নেওয়ার পর তারা ওই গুহার ভেতর প্রবেশ করে। এরপর শুরু হয় একটানা ভারী বর্ষণ। বর্ষার পানি আর কাদায় বন্ধ হয়ে যায় গুহার প্রবেশমুখ। ভেতরে আটকা পড়ে ১৩ জনের দলটি।

ঘটনা জানার পরপরই উদ্ধার অভিযান শুরু করে দেশটির সেনাবাহিনী। এর শুরুতেই তারা গুহার প্রবেশমুখে ওই কিশোরদের বাইসাইকেল খুঁজে পাওয়া যায়। গুহার ভেতরে পাওয়া যায় তাদের হাত-পায়ের ছাপ।

এরপর থেকে পুরো থাইল্যান্ডের মানুষের তাকিয়ে আছে গুহাটির দিকে। দেশটির নৌবাহিনীর সঙ্গে উদ্ধার অভিযানে যোগ দেয় যুক্তরাজ্য থেকে যাওয়া ডুবুরি দল। গুহায় যাতে অক্সিজেনের ঘাটতি না হয়, সেজন্য প্রবেশ করানো হয় কয়েকশ’ অক্সিজেন ট্যাংক। গুহার ভেতরে তৈরি করা হয় একটি বেস ক্যাম্প। প্রযুক্তির সহায়তা নেওয়াসহ নানাভাবে নিখোঁজ কিশোরদের অবস্থান শনাক্তের চেষ্টা চললেও ভারী বর্ষণ উদ্ধার অভিযান ব্যাহত হচ্ছিল। এতে করে আটকে পড়া দলটিকে ফিরে পাওয়ার আশা ধীরে ধীরে কমতে থাকে। কিন্তু উদ্ধারকারীরা দমে যাননি। চালিয়ে যান অভিযান।

এরপর আটকে পড়ার নয় দিনের মাথায় সোমবার সন্ধান মেলে দলটির। ব্রিটিশ উদ্ধারকারী ডুবুরি দল জানায়, কিশোর ফুটবল দলটি ওই গুহার মধ্যে একটি শুকনো কার্নিশের মতো জায়গায় বসে আছে।

আটকা পড়া কিশোরদের বয়স ১১ থেকে ১৬ বছরের মধ্যে আর তাদের কোচ এক্কাপোল জানথাওংয়ের বয়স ২৫। তারা যে গুহায় আটকে পড়েছে সেটি ১০ কিলোমিটার দীর্ঘ। এটি থাইল্যান্ডের দীর্ঘতম গুহা। কম প্রশস্ত ও অনেকগুলো প্রকোষ্ঠ থাকায় এর ভেতর চলাচল করা কঠিন।

Related posts

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

bodybanner 00