ব্রেকিং নিউজঃ

কারাগারে এরশাদের লাগানো গাছের বড়ই খাবেন খালেদা জিয়া

কারাগারে এরশাদের লাগানো গাছের বড়ই খাবেন খালেদা জিয়া
bodybanner 00

জিয়া অরফানেজ ট্রাষ্ট ‍দুর্নীতি মামলার রায়ে বিএনপি চেয়ারপারসন খালেদা জিয়াকে পাঁচ বছরের কারাদণ্ড দিয়ে রাজধানীর নাজিম উদ্দিন রোডের পুরনো কেন্দ্রীয় কারাগারে পাঠানো হয়েছে।

 

একসময় এই একই কারাগারে বন্দি ছিলেন জাতীয় পার্টির হুসেইন মুহম্মদ এরশাদ। তখন তিনি একটি বরই গাছ লাগিয়েছিলেন। সেই গাছে এখন বরই ধরেছে। তাই এরশাদের লাগানো গাছের বরই খালেদা জিয়াকে খেতে দিতে কারা কর্তৃপক্ষকে অনুরোধ জানিয়েছেন জাতীয় পার্টির সংসদ সদস্য ইয়াহইয়া চৌধুরী। তবে খালেদা জিয়া সে গাছের বড়ই খাবেন কিনা, বা কারা কর্তৃপক্ষই বা তাকে খেতে দেবেন কিনা নিশ্চিতভাবে বলা যাচ্ছে না।

 

বৃহস্পতিবার রাষ্ট্রপতির ভাষণের ওপর ধন্যবাদ প্রস্তাবের আলোচনায় অংশ নিয়ে জাপার সাংসদ ইয়াহইয়া চৌধুরী এ আহ্বান জানান।

 

ইয়াহইয়া চৌধুরী বলেন, ইতিহাস কাউকে ক্ষমা করে না। বেগম জিয়া একদিন হুসেইন মুহম্মদ এরশাদকে বিনা অপরাধে কারাগারে পাঠিয়েছিলেন। ভাগ্যের কী নির্মম পরিহাস, সেই জেলখানায় এখন খালেদা জিয়া!

 

তিনি আরও বলেন, ২৮ বছর আগে কারাগারে থাকা অবস্থায় হুসেইন মুহম্মদ এরশাদ যে বরই গাছ লাগিয়েছিলেন তাতে এখন বরই ধরেছে। কারাবিধান অনুযায়ী এ বড়ই খাওয়ার সুযোগ থেকে থাকলে বিএনপি চেয়ারপারসন খালেদা জিয়াকে খেতে দেওয়া হোক।

 

উল্লেখ্য, জিয়া অরফানেজ ট্রাস্ট দুর্নীতি মামলার রায়ে খালেদা জিয়াকে পাঁচ বছরের কারাদণ্ড দিয়েছেন আদালত। রায়ের পর খালেদা জিয়াকে ঢাকার নাজিমউদ্দিন রোডের পুরোনো কেন্দ্রীয় কারাগারে নেওয়া হয়। সেখানে আসামিদের বাচ্চাদের জন্য একসময় ব্যবহৃত কিডস ডে কেয়ার সেন্টারের তিনতলা ভবনের নিচতলায় দুটি রুমে তার থাকার ব্যবস্থা করা হয়েছে।

 

এর আগে বৃহস্পতিবার বেলা আড়াইটার দিকে রায় ঘোষণা করা হয়। এর আধা ঘণ্টা পর খালেদা জিয়াকে কড়া পুলিশি পাহারায় কারাগারে নেওয়া হয়।

 

একই সঙ্গে খালেদা জিয়ার ছেলে তারেক রহমানসহ মামলার অপর পাঁচ আসামির প্রত্যেককে ১০ বছর করে সশ্রম কারাদণ্ড দেওয়া হয়েছে। বাকি চার আসামি হলেন সাবেক মুখ্য সচিব কামাল উদ্দিন সিদ্দিকী, সাবেক সাংসদ ও ব্যবসায়ী কাজী সালিমুল হক কামাল, ব্যবসায়ী শরফুদ্দিন আহমেদ ও জিয়াউর রহমানের ভাগনে মমিনুর রহমান। এর মধ্যে পলাতক আছেন তারেক রহমান, কামাল উদ্দিন সিদ্দিকী ও মমিনুর রহমান।

 

পাশাপাশি ছয় আসামির প্রত্যেককে ২ কোটি ১০ লাখ টাকা করে জরিমানা করা হয়েছে।

Related posts

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

bodybanner 00