কলাপাড়ায় মাধ্যমিক স্তরের পাঠ্যবই খোলা বাজারে বিক্রি ॥

কলাপাড়ায় মাধ্যমিক স্তরের পাঠ্যবই খোলা বাজারে বিক্রি ॥
bodybanner 00
মোয়াজ্জেম হোসেন,পটুয়াখালী প্রতিনিধি :
কলাপাড়ায় মাধ্যমিক শিক্ষা ও মাদ্রসার ২০১৭ সালের পাঠ্যবই খোলা বাজারে বিক্রির অভিযোগ পাওয়া গেছে। আট টাকা কেজি দরে এসব বই বিক্রি করা হয়েছে কুষ্টিয়ার জাফর নামে এক ব্যবসায়ীর কাছে। বিষয়টি শনিবার (৩০জুন) গনমাধ্যম কর্মীদের নজরে আসলে সেদিন রাতেই ট্রাক বোঝাই করে ওইসব বই নিয়ে সটকে পড়ে পুরনো কাগজ ব্যবসায়ী জাফর। বিষয়টি অবগত করা হলে নড়েচড়ে বসে কলাপাড়া উপজেলা মাধ্যমিক শিক্ষা অফিস।
মাধ্যমিক শিক্ষা অফিস সূত্রে জানা যায়, কলাপাড়া মাধ্যমিক শিক্ষা অফিসের আওতাধীন উপজেলায় ৩৩টি মাধ্যমিক, ২৭টি মাদ্রাসা ও প্রায় ৬০টি এবতেদায়ী মাদ্রাসা রয়েছে। সরকারের অগ্রাধিকার ভিত্তিক শিক্ষা কার্যক্রমের আওতায় বছরের প্রথম দিন এসব শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে শিক্ষার্থীদের হাতে নতুন বই তুলে দেয়া হয়। শিক্ষা প্রতিষ্ঠান গুলো প্রতিটি নতুন শিক্ষাবর্ষে ছাত্র-ছাত্রীর সংখ্যার বিপরীতে চাহিদাপত্র দিয়ে নতুন বই সংগ্রহ করে ছাত্র-ছাত্রীদের মাঝে বিতরন করে। বই গুদামজাত করার জন্য শিক্ষা অফিসের নিজস্ব কোন গুদাম না থাকায় পৌর শহরের নেছার উদ্দিন সিনিয়র মাদ্রাসার ছাত্রীদের কমনরুমে (বিশ্রামাগার) দখল করে রেখে এসব বই বিতরন করা হয়। উপজেলা নির্বাহী অফিসারকে প্রধান এবং মাধ্যমিক শিক্ষা অফিসারকে সদস্য সচিব নিযুক্ত করে তিন সদস্য বিশিষ্ট একটি কমিটি উম্মুক্ত দরপত্র প্রক্রিয়ার মাধ্যমে অবিশিষ্ট এসব বই বিক্রির টাকা সরকারি কোষাগারে জমা করা হয়।
একটি নির্ভরযোগ্য সূত্র জানায়, বিভিন্ন শিক্ষা প্রতিষ্ঠান প্রতিবছর তাদের ছাত্র-ছাত্রীদের সংখ্যার বিপরীতে অতিরিক্ত বই সংগ্রহ করে এবং বছর শেষে তা খোলা বাজারে বিক্রি করে দেয়। সংশ্লিষ্ট গুদামের চাবি কলাপাড়া নেছার উদ্দিন সিনিয়র মাদ্রাসা কর্তৃপক্ষের কাছে থাকে এমন দাবি করে মাধ্যমিক শিক্ষা অফিস জানায়, বিক্রিত এসব বই তাদের গুদামের নয়। তাদের দাবী, এসব বই বিভিন্ন শিক্ষা প্রতিষ্ঠান বিক্রি করেছে।

Related posts

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

bodybanner 00