ব্রেকিং নিউজঃ

ইনবক্স থেকে গোপনে মুছে দেয়া হয়েছে জুকারবার্গের মেসেজ

ইনবক্স থেকে গোপনে মুছে দেয়া হয়েছে জুকারবার্গের মেসেজ
bodybanner 00

কিছু দিন আগেই ব্রিটিশ দৈনিকগুলোতে পাতাজোড়া বিজ্ঞাপন দিয়ে ফেসবুক ব্যবহারকারীর ব্যক্তিগত তথ্য ফাঁসের ঘটনায় ভুল স্বীকার করেছে ফেসবুক।

 

ওই সাদাকালো বিজ্ঞাপনে লেখা ছিল, আপনাদের ব্যক্তিগত তথ্য সুরক্ষিত রাখা আমাদের দায়িত্ব। সেটা করতে না পারলে, আমাদের কোনো যোগ্যতাই নেই। অথচ সপ্তাহ ঘুরতে না ঘুরতেই তাদের ভাবমূর্তির স্বচ্ছতা নিয়ে ফের প্রশ্ন উঠেছে। কারণ বিভিন্ন প্রতিষ্ঠানকে ফেসবুকের উচ্চপদস্থ কর্মকর্তাদের লেখা মেসেজ গোপনে মুছে দিয়েছে প্রতিষ্ঠানটি।

 

‘টেকক্রাঞ্চ’ নামে তথ্যপ্রযুক্তি সংক্রান্ত এক মার্কিন অনলাইন সংস্থার দাবি, একাধিক সূত্রের কাছ থেকে তারা জেনেছে, তাদেরকে করা ফেসবুকের প্রধান নির্বাহী মার্ক জুকারবার্গের পুরনো মেসেজগুলো তাদের ইনবক্স থেকে মুছে ফেলেছে সংস্থাটি। শুধু তাদের নিজেদের করা মেসেজগুলো পড়ে রয়েছে ইনবক্সে।

 

অথচ সাধারণ ফেসবুক ব্যবহারকারীরা কিন্তু এই কাজ করতে পারেন না। তারা যদি চান, ফেসবুক-বন্ধুকে করা মেসেজ নিজেদের ইনবক্স থেকে মুছে ফেলতে পারেন। কিন্তু বন্ধুর ইনবক্স থেকে মুছতে পারবেন না। তারা সেগুলো দেখতে পাবেন। কিন্তু সেই কাণ্ডই ঘটেছে তাদের সঙ্গে, দাবি অভিযোগকারীদের। সেই প্রমাণও দিয়েছে তারা। তাদের অভিযোগ, ব্যক্তিগত স্বার্থরক্ষা করতে জুকারবার্গই এই কাজ করিয়েছেন।

 

জবাবে ফেসবুক অভিযোগ স্বীকার করে জানিয়েছে, কর্পোরেট নিরাপত্তার কথা ভেবেই এই পদক্ষেপ করেছে তারা। তাদের বক্তব্য, ২০১৪ সালে বেশ কিছু কর্তাব্যক্তির পাঠানো মেসেজ তারা মুছে দিয়েছিল।

 

এক বিবৃতি দিয়ে তারা জানিয়েছে, ২০১৪ সালে সনি পিকচার্সের ইমেল হ্যাক হওয়ার পরে সংস্থার কর্তাদের নিরাপত্তার জন্য কিছু ব্যবস্থা নিয়েছিলাম। তার মধ্যে মেসেঞ্জারে বিভিন্ন বন্ধুকে মার্ক জুকারবার্গের পাঠানো মেসেজগুলো মুছে দেয়াও একটি গুরুত্বপূর্ণ পদক্ষেপ ছিল।

 

যদিও তথ্য-চুরির মতো এত বড় অভিযোগ মাথায় নিয়েও, ফেসবুক ব্যবহারকারীদের ইনবক্স থেকে তাদের না জানিয়ে মেসেজ মুছে দেয়ার মতো কথা চেপে গিয়েছে তারা। ঘোষণা করা তো দূরের কথা, ব্যক্তিগতভাবেও কিছু জানায়নি। তাতেই প্রশ্ন উঠছে, এটাও কি এক ধরনের বিশ্বাসঘাতকতা নয়? এই প্রশ্নটিও করা হয়েছিল ফেসবুককে। কিন্তু কোনো উত্তর দিতে রাজি হয়নি সংস্থাটি। সূত্র: আনন্দবাজার পত্রিকা

Facebook Comments

Related posts

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

bodybanner 00